মিজানুর রহমান: মানিকগঞ্জের সিংগাইরে ডরিন পাওয়ার কোম্পানির নির্মাণাধীন পাওয়ার প্ল্যান্টের কাজের ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে চেয়ারম্যান- মেম্বার দুগ্রুপে সংঘর্ষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যার আব্দুল হালিম রাজু ও তার সমর্থকের মারধরে প্রতিপক্ষ শাহজাহান মেম্বারের ভাই বাবুল হোসেন মারাত্মক আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা জানান, জামির্ত্তায় ইউনিয়নের সুদক্ষিরা এলাকায়
নির্মাণাধীন পাওয়ার প্ল্যান্টের কাজ শুরু করে করে ককোম্পানী। আর এ কাজের ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে দু’পক্ষের দ্বন্দ্ব চলে আসছিল শুরু থেকে। আগেও কয়েক দফায় দেশীয় অস্ত্র নিয়ে উভয় গ্রুপের লোকজনের মধ্যে মহড়া ও পাল্টা মহড়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায় চেয়ারম্যানের পক্ষ লোকজন নিয়ে কাজ চালু করে। এতে প্রতিপক্ষ মেম্বার শাহজাহান কাজ বন্ধ করে দেয়। এ ঘটনা নিয়ে পাওয়ার প্ল্যান্ট মালিকপক্ষ দু’গ্রুপের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করে।কতৃপক্ষ চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম রাজু সঙ্গে লিখিতভাবে কাজের চুক্তি করা হয়। এ খবর শাহজাহান মেম্বার ও তার লোকজন শুনে ক্ষিপ্ত হয়ে নির্মাণ শ্রমিকদের মারধর করে কাজ বন্ধ করে দেন। পুনরায় বৈঠক করে মালিকপক্ষ মৌখিকভাবে শাহজাহান গ্রুপকে কাজের অনুমতি দেন। এ নিয়ে সংঘর্ষ চূড়ান্ত রূপ নেয়। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রতিপক্ষ গ্রুপের মারধরে শাহজাহান মেম্বারের বড় ভাই আহত হন। আহত বাবুলকে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ঢাকা শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।
জামির্ত্তা ইউপি ৬ নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. শাহজাহান বলেন, কিছু বুঝে ওঠার আগেই রাজু চেয়ারম্যানের লোকজন আমাদের বাড়ির সামনে এসে আমার বড় ভাই বাবুলকে মারধর করে। তার ভাইয়ের অবস্থা গুরুতর।
এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম রাজু বলেন, আমার ছোট ভাইয়ের সঙ্গে ডিশ ব্যবসার বিলকে কেন্দ্র করে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। পাওয়ার প্ল্যান্ট নিয়ে আধিপত্য বিস্তার কিংবা ভাগ-বাাটোযারার কোনো বিষয় না।

সিংগাইর থানার ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন বলেন, দু’গ্রুপের মুখোমুখি অবস্থানের কথা শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল । মারধর ও আহতের ঘটনা ঘটে থাকলে মামলা নেয়া হবে।