সাহেদ আলী: হাইওয়ে পুলিশ সুপার বগুড়া রিজিয়ন এর দিক নির্দেশনা মোতাবেক আসন্ন ঈদে ঘর মুখো যাত্রীদের যাত্রা পথ নির্বিঘ্ন, আনন্দঘন, নিরাপদ ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধে নানামুখী তৎপরতা শুরু করেছে হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানা পুলিশ। ঈদ উদযাপন শেষে ঢাকায় নিজ নিজ কর্মস্থলে ফিরে আসা পর্যন্ত এ ব্যবস্থা অব্যাহত রাখার কথা জানিয়েছেন হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী। নিরলস পরিশ্রমী, কর্মতাৎপরতা আর আন্তরিক ভাবে দায়িত্ব পালন কারী, অত্যান্ত সাদা মনের মানুষ হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানীর কর্মকালীন সময়ে যথেষ্ট অবদান রেখেছেন। তারই কর্মতৎপরতায় মহাসড়ক এলাকায় নছিমন, সিএনজি, অটো রিক্সা বন্ধ হয়েছে। যার ফলে সড়ক দুর্ঘটনাও অনেকাংশে কমে গেছে। উত্তর বঙ্গের প্রবেশদ্বার সলঙ্গা থানার হাটিকুমরুল রোড হতে তার আওতাধীন মহাসড়কে যানজট নিরেসন ও ঈদে ঘরে ফেরা যাত্রীদের ভোগান্তি কমাতে এবারের উদ্যোগ চোখে পরার মত। ঈদ যাত্রাকে আনন্দঘন ও নিরাপদ করার জন্য পাঁচলিয়া ফুট ওভার ব্রিজ, ফুড ভিলেজ-এরিস্ট্রোক্রেট হোটেল হয়ে গোলচত্বর পর্যন্ত নিজ উদ্যোগে দৃষ্টি নন্দন রোড ডিভাইডার করেছেন। গোলচত্বর ছাড়াও মহাসড়কের গুরুত্বপূর্ণ বাস স্ট্যান্ড ও বাজার এলাকায় কনক্রিট খুঁটি দিয়ে গাড়ী যাতায়াতের রাস্তা সুগম করেছেন। হাটিকুমরুল গোলচত্বরে ওয়াচ টাউয়ার স্থাপন করে ঈদের পর পর্যন্ত দুরবীক্ষণ যন্ত্রের মাধ্যমে গাড়ী পার্কিং, যানজট সহ গাড়ীর গতিবিধি পর্যবেক্ষন ও করছেন। ঈদকে সামনে রেখে হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার নির্ধারিত ৫৫ জন পুলিশের টহল অপর্যাপ্ত মনে করে ইতি মধ্যেই বাইরে থেকে আরও ৭০ জন পুলিশ সদস্যদের কে মহাসড়কে সাময়িক দায়িত্ব ও টহল প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন ক্রমে অনুমোদন পেয়েছেন। দু’ এক দিনের মধ্যে তারা দায়িত্ব পালন করবেন। ওসি আব্দুল কাদের জিলানী সার্বক্ষনিক উপস্থিতি থেকে তার আওতাধীন মহাসড়কের দায়িত্ব প্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তাদের মনিটরিং সহ যানবাহনে গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করছেন। শুধু তাই নয়, অফিস কক্ষে বসেও সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে সর্বদা নজরদারী করছেন এ পুলিশ কর্মকর্তা। ঘুম ঘুম চোখে গাড়ী চালাবেন না, অপরিচিত লোকের দেওয়া কোন খাবার খাবেন না, মলম পাটি ও অজ্ঞান পাটি হতে সতর্ক থাকুন,রাস্তা পারা পারে সর্বদা সর্তক থাকুন, লিফলেট বিতরন সহ

হাটিকুমরুল গোলচত্ত্বরে পুলিশ কন্ট্রোল রুম স্থাপন করে সার্বক্ষনিক মাইকিং করে প্রচার কার্য পরিচালনা করছেন।