পূর্ণ রায় রিপন: রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলা পরিষদের ভিতরে যাওয়ার ৩টি গেটের মধ্যে ১টি গুরুত্বপূর্ন গেট বেশকিছু দিন থেকে বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পরেছে উপজেলা পরিষদে আসা লোকজন। জানা যায় উপজেলা পরিষদের ভিতরে যাওয়ার জন্য জনসাধারনের সুবিধার্থে প্রায় ১৫ বছর আগে মাঝ গেটের দুই পাশের্^ ২টি গেট নির্মান করা হয়। সে সময় থেকে ওই ৩টি গেট দিয়ে জনসাধারণ উপজেলা পরিষদ চত্তরের বিভিন্ন অফিসে কাজের জন্য যাতায়াত করে। উপজেলা পরিষদ চত্তরের ভিতরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ তার বিভিন্ন দপ্তরের কার্যালয় ও সাব রেজিষ্ট্রি অফিস। তাই সরকারী বন্ধ ছাড়া প্রতিদিনই এ উপজেলার সব শ্রেনি পেশার লোকজন নানা কাজে উপজেলা পরিষদ চত্তরে যাতায়াত করে। বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলীমা বেগম এ উপজেলায় যোগদান করার পর থেকে উপজেলা পরিষদ যাওয়ার পশ্চিম দিকের গুরুত্বপূর্ন গেটটি বন্ধ রাখা হয়েছে। ওই গেটটির সামনে উপজেলার অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গঙ্গাচড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়। ওই বিদ্যালয়ে কোন মাঠ নেই। একারনে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা দুপুরে টিফিনের সময় উপজেলা পরিষদের মাঠে গিয়ে খেলা ধুলাসহ বিশ্রাম করে। গেটটি বন্ধ থাকায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ উপজেলা পরিষদে আসা জনসাধারন চরম দুর্ভোগে পরেছে। উপজেলার কোলকোন্দ ইউনিয়নের বাসিন্দা সুমন, পলাশসহ আরো অনেকে জানান আমরা বাড়ি থেকে ১০ টাকা দিয়ে অটোযোগে গঙ্গাচড়া জিরো পয়েন্টে আসি। সেখান থেকে উপজেলা পরিষদের দুরুত্ব অনেক। মাঝের গেট দিয়ে উপজেলা পরিষদে পায়ে হেঁটে যেতে অনেক সময় লাগে। গঙ্গাচড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মেঘলা, মাইশা, কল্যাণ, জয়শ্রী, মাইদুল, জয় জানান তাদের স্কুলে মাঠ নেই। তারা দুপুরে টিফিনের সময় উপজেলা পরিষদের মাঠে খেলাধুলাসহ বিশ্রাম করে। স্কুলের সামনের গেটটি বন্ধ হওয়ায় তাদের অনেক কষ্ট হয়েছে। দুর্ভোগের শিকার জনসাধারনসহ শিক্ষার্থীরা দ্রুতই গেটটি খুলে দেয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান। এ বিষয়ে উপজেলা

নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলীমা বেগমের মন্তব্য নেয়ার জন্য সোমবার সকালে অফিসে গেলে তার কর্মচারীরা সাংবাদিকদের বলেন স্যার ১টি মিটিংয়ে রংপুরে গেছেন। পরে তার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যায়নি।