বাল্যবিয়ে

মিজানুর রহমান: মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার ৩ শিক্ষার্থী বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষায় পেলো। শুক্রবার স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে তাদের বিয়ে বন্ধ করা হয়। থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, হরিরামপুর উপজেলার কালই ও মালুচি গ্রামে দুটি বাল্য বিয়ের আয়োজন চলছিল। গ্রামের ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীর (১৩) সঙ্গে একই উপজেলার মালুচি গ্রামের নূর আলীর ছেলে হাবিবুর রহমানের বিয়ের আয়োজনের খবর পেয়ে দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইলিয়াস মেহেদী ওই বাড়িতে গিয়ে হাজির হন। তাদের বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেন। অপরদিকে দুপুরে হরিরামপুরের কালই গ্রামের একাদশ শ্রেণির ছাত্রীর (১৭) সঙ্গে উপজেলার ধূসরিয়া গ্রামের মমতাজ উদ্দিনের ছেলে দেলোয়ার হোসেনের বিয়ের আয়োজন চলছিল। খবর পেয়ে সেখানে পুলিশ কনের বাড়িতে গিয়ে াজির হন। সেখান থেকে পুলিশ উভয়পক্ষের লোকজনকে আটক করে। এরপর হরিরামপুর উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাদেরকে হাজির করা হয়। সন্ধ্যায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ইউএনও ইলিয়াস মেহেদী কনের বাবা আবু হানিফকে ৭দিন এবং বর দেলোয়ারকে ৭ দিন করে কারাদ-াদেশ দেন। অপরদিকে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ওই ছাত্রীর বাড়িতে বরপক্ষের কাউকে পাওয়া যায়নি। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে কনের বাবা ইউনুস আলীকে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া সদর উপজেলার গিলন্ড গ্রামে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর বাল্যবিয়ের আয়োজন করা হয়। বৃহস্পতিবার ছিল ওই ছাত্রীর গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান। খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন ওই ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেয়। সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন সরকার নবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রাকিব হোসেনকে ওই বাড়িতে পাঠিয়ে বাল্যবিবাহ বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়।