টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করার জন্য সুশাসনের বিকল্প নেই: রংপুরে কর্মশালায় বক্তারা

জয়নাল আবেদীন: সরকার, নাগরিক সংগঠন এবং নাগরিকদের সম্মিলিত প্রচেষ্টাতেই কেবল বাংলাদেশে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রশাসন ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। “টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করার জন্য সুশাসনের বিকল্প নেই বৃহস্পতিবার রংপুর নগরির একটি হোটেলে দিনব্যাপী কর্মশালায় বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এবং বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে, বাংলাদেশ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অংশীদারত্বে এবং বাংলাদেশ ব্রিটিশ কাউন্সিলের ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত প্লাটফর্মস ফর ডায়ালগ -পিফরডি প্রকল্পের অংশ হিসেবে ‘অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রশাসন এবং সামাজিক জবাবদিহিতা (ওএঝঅ) ফোরাম আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য, যোগাযোগ ও প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলম। উদ্ধোধনী বক্তব্য প্রদান করেন জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব পি ফর ডি পরিচালক সুলতান আহমেদ । এরপর বক্তব্য দেন বৃটিশ কাউন্সিল এবং পিফরডি প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, জেসিকা ম্যগসন। রংপুর বিভাগীয় কমিশনার তারিকুল ইসলাম, জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব রাহাত আনোয়ার ,জেলা প্রশাসক এনামুল হাবীব । বক্তারা বলেন যেকোনো প্রতিষ্ঠানে জবাবদিহিতা ছাড়া গণতন্ত্র সম্পূর্ণভাবে কার্যকর হয় না। পিফরডি প্রকল্প সুশাসন ও সামাজিক জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছে”। সামাজিক জবাবদিহি নীতিমালার প্রয়োগ নিশ্চিতকরণে পিফরডি-এর কার্যক্রমে গুরুত্বারোপ করে রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার এম তারিকুল ইসলাম বলেন, “জনগণ হচ্ছে দেশের মালিক। তাই সুশাসন নিসচিতকরনের সমস্ত প্রক্রিয়ায় তাদের অংশগ্রহণ গুরত্বপূর্ণ”। দিনব্যাপী ফোরামটিতে ছিলো সামষ্টিক আলোচনা, বিষয়ভিত্তিক সেশন ও কর্মশালা। এ সেশনগুলোয় প্রধানত জাতীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে নাগরিক সংশ্লিষ্টতা ও সেবার মান তত্ত্বাবধানের দায়িত্বে থাকা সরকারি কর্মকর্তাদের চাহিদা প্রসঙ্গে আলোচনার পাশাপাশি নাগরিক সেবা প্রতিশ্রুতি(সিটিজেন চার্টার) ও অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থা (গ্রিভেন্স রিড্রেস সিস্টেম)এর কার্যকরী প্রয়োগ সংক্রান্ত জ্ঞান ও দক্ষতার উপর জোর দেয়া হয়।স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রশাসন গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করছে, তিন বছর মেয়াদী প্রকল্প পিফরডি। প্রকল্পে, সরকার ও নাগরিক সমাজের মধ্যে সহযোগিতামূলক সম্পর্কের উন্নয়নে পারস্পরিক দায়িত্ব ও কর্তব্যের ওপর জোর দেয়া হয়েছে। পিফরডি প্রকল্প এর অন্যতম উদ্দেশ্য হলো, সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় উল্লিখিত লক্ষ্যগুলোর পাশাপাশি জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল, তথ্য অধিকার আইন, অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থা ও নাগরিক সেবা প্রতিশ্রুতি কেন্দ্রিক নীতিমালা বাস্তবায়নে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহায়তা প্রদান করা।জেলাপর্যায়ে নাগরিক সমাজ ও স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তা প্রদান করছে পিফরডি। কর্মকা-ের অংশ হিসেবে ২১টি জেলায়, এলাকাভিত্তিক প্রশাসনিক ইস্যু নিয়ে স্থানীয় নাগরিক সংগঠন ও স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিদের মিথস্ক্রিয়া ও মতবিনিময় বিষয়ক প্রশিক্ষণ ও সহায়তা দেয়া হচ্ছে।