চান্দিনার সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়।

ওসমান গনি: কালের সাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে কুমিলার চান্দিনার সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়টি একশ বছরেরও বেশি সময় ধরে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে। কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলা সদরে অবস্থিত চান্দিনা সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়। ব্রিটিশ সরকারের শাসনামলে ত্রিপুরা রাজ্যের রাজা বীর বিক্রম মাণিক্য এর সময়ে ১৯১৬ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়টি শতবর্ষ পূর্ণ করেছে আরও চার বছরে আগেই। বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা থেকে শুরু করে বর্তমান পর্যন্ত বিদ্যালয়টি এখন ১০৩ বছর অতিক্রম করছে।
দীর্ঘ এ পথ পাড়ি দিতে গিয়ে বিদ্যালয়টির বিভিন্ন সময়ে নামেও এসেছে বিভিন্ন পরিবর্তন। ১৯১৬ সালে বিদ্যালয়টি যখন প্রতিষ্ঠিত হয় তখন এর নাম ছিল-বরকামতা গভঃএইডএডএইচ.ই বিদ্যালয়। পরবর্তীতে ১৯২০ইং সালে বিদ্যালয়ের নিজস্ব অর্থায়নে চার একর সাড়ে ৫৪ শতক জায়গা অধিগ্রহণ করে বর্তমান স্কুল ক্যাম্পাসটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৫৬ ইং সনে বিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন হয় চান্দিনা হাই স্কুল(তৎকালীন বরকামতা বাজার) বর্তমানে চান্দিনা বাজার। ১৯৮০ইং সনে বিদ্যালয়টি সরকারের পাইলট প্রকল্পে যুক্ত হওয়ার কারণে চান্দিনা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এবং ২০১৩ইং সনে মডেল প্রকল্প যুক্ত হওয়ার কারনে চান্দিনা মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় নামকরণ করা হয়। ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ হওয়ার পর চান্দিনা সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় নামকরণ করা হয়।
এ দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় বিদ্যালয় থেকে অনেক কৃতী শিক্ষার্থী, জ্ঞানী-গুণীজন বেরিয়ে গেছেন। যারা এখন রাষ্ট্রের বিভিন্ন উঁচু পদে প্রতিষ্ঠিত হয়ে সরকারের বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। এ বিদ্যালয়ের এমন অনেক শিক্ষার্থী রয়েছেন, তাদের পরবর্তী কয়েক প্রজন্মও এ বিদ্যাপিঠ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেছেন। কেউ কেউ এ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করে দেশের উচ্চ পর্যায়ে নিজের স্থান অর্জন করে আলোকিত করেছেন বিদ্যালয়কে, আবার কেউ বা এ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করে এ বিদ্যালয়েই শিক্ষার আলো ছড়িয়ে যাচ্ছেন।
২০১৫ সালে বিদ্যালয়টি শতবর্ষ পূর্তি হলেও নানা জটিলতায় শতবর্ষ উদযাপনের আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। ২০১৭ সালে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ দায়িত্ব নেওয়ার পর শতবর্ষ উদযাপনের প্রস্তাব আসে। পরবর্তীতে ২০১৮ সালের শুরুর দিকে এ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির দায়িত্ব নেওয়ার পর শতবর্ষ উদযাপন করার আলোচনা আসে। সেই মোতাবেক নেওয়া হয় নানাহ প্রস্তুতি। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে খুব সাজসজ্জা করে ২৬ অক্টোবর /১৮ইং শতবর্ষ উৎযাপন অনুষ্ঠান করা হয়। শতবর্ষ উদযাপন আয়োজনের মধ্য দিয়ে সকল শ্রেনিপেশার প্রবীণ নবীনদের মিলন মেলায় পরিণত হয়েছিল চান্দিনা সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ক্যাম্পাস। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর এ পর্যন্ত ২০জন গুনি শিক্ষক এ বিদ্যালয়ের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁদের মধ্যে ১৪জন দায়িত্বপ্রাপ্ত এবং ৬জন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক।
বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ১৯৩৫ইং সনে সর্ব প্রথম স্ট্যান্ড করেন প্রাণ কুমার ঘোষ, একই বোর্ডের অধীনে ১৯৪৩ইং সনে গোলাম মোয়াজ্জেম, ১৯৪৪ইং সনে আলী আহমেদ, ১৯৪৯ইং সালে ইষ্ট বেঙ্গল স্কুল এডুকেশন ঢাকার অধীনে রহমত উল্লাহ, কুমিল্লা বোর্ডের অধীনে ১৯৬৩ইং সনে গোপাল চন্দ্র সেন, ১৯৬৭ইং সনে সুভাষ চন্দ্র কর, ১৯৭৩ইং সনে নজরুল ইসলাম, সমেরেন্দ্র দত্ত, সহিদুল হক, জাকির হোসেন, ১৯৭৪সনে সেলিম জাহাঙ্গীর, আবুল কালাম আজাদ, ১৯৮৭সালে মেহেদী মাসুদ, ২০০০ সালে ওজায়ের আহমেদ।
এই বিদ্যালয় থেকে দেশে বিদেশে আলো ছড়িয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, প্রকৌশলী ড. আব্দুর রাজ্জাক, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাবেক ডিজি এমএ রশিদ, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম রফিকুল ইসলাম, পুলিশ সুপার খলিলুর রহমান, সচিব দেওয়ান মো. জাকির হোসেন, প্রকৌশলী খোরশেদ আলম সরকার, জেলা জজ মফিজুল ইসলাম, যুগ্ম সচিব আব্দুস ছাত্তার, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব প্রাপ্ত ভিসি অধ্যাপক সামছুল হক, বাংলাদেশ চা উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক পরিচালক হারুন অর রশিদ, জেলা সিভিল ডা. মুজিব রাহমান সহ আরও বহু গুনীজন ব্যক্তবর্গ। এছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বপালন করেন এ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী।
এ বিদ্যালয় থেকে পাশ করার পর রাজনৈতিক ভাবে জনপ্রতিনিধিত্ব করে সফল হয়েছেন আরও দুই শিক্ষার্থী। তারা হলেন-চান্দিনা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম মো. খোরশেদ আলম এবং বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা তপন বক্সী। বিদ্যালয়ের লেখাপড়ার মান অনেক উন্নত।বর্তমানে ছাত্রের সংখ্যা প্রায় হাজারের কাছাকাছি। বিদ্যালয়ের সামনে রয়েছে একটি পুকুর। বিদ্যালয়ের দক্ষিণ ও পূর্বদিকে রয়েছে দ্বীতল ভবন মার্কেট।