লামায় বহিরাগতদের মিথ্যা মামলায় ঘরছাড়া স্থানীয় ৫ হতদরিদ্র কৃষক পরিবার

মো. নুরুল করিম আরমান: বহিরাগত প্রভাবশালীদের মিথ্যা মামলার শিকার হয়ে বান্দরবানের লামা উপজেলার পাঁচ হত দরিদ্র কৃষক পরিবার ঘর ছাড়া বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয়, এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কৃষকের একটি বসতঘরে আগুন লাগিয়ে দেয় ও গত কয়েক বছরে এক একর, দুই একর করে বেশ কিছু জমি প্রভাব খাটিয়ে বেদখল করেন বহিরাগত প্রভাবশালীরা। উপজেলার সরই ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ি পুইট্টাঝিরি পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। কৃষক বশির আহমদ চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চুনতি ইউনিয়নের সাতঘর এলাকার বাসিন্দা মঞ্জুর আলম (৫০) ও আবদুল মজিদ (৬৫) গংদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন। প্রভাবশালী কর্তৃক একের পর এক মিথ্যা মামলা ও হামলায় নি:স্ব হয়ে পড়েছেন ওই কৃষক পরিবার। মিথ্যা মামলা, হামলা থেকে রক্ষা পেতে ও জমি রক্ষায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ওই কৃষক পরিবার। অভিযোগে জানা যায়, সরই ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড পুইট্টাঝিরি পাড়ার মৃত মাওলানা ইসহাক আলীর ছেলে কৃষক বশির আহমদ, নুরুল হুদা, আমিনুল এহসান, মনিরুজ্জামান, মোস্তফার নামে ৩০৩নং মৌজার আর হোল্ডিং নং ৩৩৬ মূলে ও ক্রয় সূত্রে মোট ২৫ একর পাহাড়ি জমি রয়েছে। এ জমিতে বহু কায়িক পরিশ্রম ও অর্থ ব্যয়ে বিভিন্ন ফলদ বনজ বাগান সৃজনসহ বসতঘর নির্মাণ করে দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে ভোগ করে আসছেন তারা। সম্প্রতি ওই জমির উপর চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া উপজেলার চুনতি ইউনিয়নের উত্তরপাড়া সতঘর পাড়ার বাসিন্দা আবদুল মজিদ ও মঞ্জুর আলম গংদের লোলুুপ দৃষ্টি পড়ে। তারা এ জমি দখলে নিতে কৃষক পরিবারের উপর হামলা ও মামলা শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১০ সেপ্টেম্বর দুপুরে মঞ্জুর আলম ও আবদুল মজিদের নেতৃত্বে দেশীয় তৈরি অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ৩০-৪০ জন বগিরাগত সন্ত্রাসী নিয়ে প্রায় দুই একর জমি জমি জবর দখলের উদ্দেশ্যে ঘেরাবেড়া নির্মাণের চেষ্টা করে। এ সময় বাঁধা প্রদান করলে সন্ত্রাসীরা কৃষক বশির আহমেদসহ তার পরিবারের অন্যদের উপরও হামলা চালায়। খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে কৃষক পরিবারকে উদ্ধার করেন এবং সেনাবাহিনীর সহায়তায় ২০জন বহিরাগত সন্ত্রাসীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। পরে এ ঘটনায় কৃষক মনিরুজ্জামানের স্ত্রী পারুল বেগম বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৪-৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। পরবর্তীতে মামলার বিবাদীরা আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে গত বুধবার দিনগত রাতে কৃষকের একটি বসতঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। এছাড়াও কৃষক পরিবারের জমি জবর দখলের প্রতিবাদ করায় বহিরাগত আবদুল মজিদ বাদী হয়ে গত ৩ অক্টোবর উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য নাছির উদ্দিন ও আজিজনগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হারেছ মিয়া, কৃষক বশির আহমদসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা করেন। ১৩ সেপ্টেম্বরও জমি জবর দখলের প্রতিবাদ করায় গজালিয়া আনসার ভিডিপি সদস্য হাফিজুর রহমানসহ কৃষক পরিবারের বিরুদ্ধে থানায় আরেকটি মামলা করেন আবদুল মজিদগং। কৃষক বশির আহমদ ও পারুল বেগম অভিযোগ করে বলেন, প্রতি বছরেই আবদুল মজিদ গং প্রভাব খাটিয়ে আমাদের জমির অংশ থেকে এক একর, দুই একর করে জমি দখল করে নেয়। এতে আমরা দিনদিন নি:স্ব হয়ে পড়ছি। তাছাড়া মিথ্যা মামলার কারণে আমরা এখন ঘরে থাকতে পারছিনা। অভিযোগ অস্বীকার করে অভিযুক্ত আবদুল মজিদ মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে বলেন, ঘরের আগুন লাগার বিষয়ে আমি কিছু জানি না। এছাড়া আমি কারো বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছিনা। স্থানীয় ডিগ্রিখোলা বাজারের ব্যবসায়ী আবদুস সোবহান ও রবিউল হোসেন জানায়, আবদুল মজিদের বাগানের কেয়ারটেকার খলিল ও রফিক আমাদের কাছ থেকে ঘটনার দিন সন্ধ্যার পর পৃথকভাবে দেড় কেজি কেরসিন তেল কিনেছিলেন। এ বিষয়ে সরই ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মো. নাছির উদ্দিন, আজিজনগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হারিছ মিয়া ও হেডম্যান যোহন ত্রিপুরাসহ স্থানীয় অনেকে বলেন, কৃষক বশির আহমদ ও তার ভাইয়েরা জমি আবাদ করত: বসতঘর নির্মাণ করে দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে ভোগ করে আসছেন। সম্প্রতি বহিরাগত মঞ্জুর আলম ও আবদুল মজিদগং কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের নামীয় অন্য জায়গার একটি জমাবন্দি উপস্থাপন করে জমি তাদের দাবী করে অযথা বিভিন্ন

সময় কৃষক পরিবারের ওপর মিথ্যা মামলা ও হামলা চালাচ্ছেন। মামলা ও হামলার ভয়ে কৃষক পরিবারের লোকজন এখন ঘরে ঘুমাতে পারছেন না। তাছাড়া গত বুধবার দিনগত রাতে কৃষক পরিবারের একটি বসতঘরে আগুন লাগিয়ে দেয় প্রতিপক্ষ। লামা থানার উপ-পরিদর্শক জয়নাল আবেদীন জানান, আবদুল মজিদ ও বশির আহমদ গংদের মধ্যে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধ রয়েছে। কিছুদিন পূর্বে ঘটনাস্থলে গিয়ে যাচাই বাছাই করে যে যে অবস্থায় আছেন, তাকে সে অবস্থায় থাকার জন্য বলেছিলাম। এর কিছুদিন পর আবদুল মজিদগং জমিতে ঘেরাবেড়া দিতে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে মরামারি হয়। এ নিয়ে উভয় পক্ষ আদালত ও থানায় মামলা করেছেন। মামলার তদন্ত চলছে।