শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে: মুকুল

এএসটি সাকিল: আন্তজার্তিক দুযোর্গ প্রশমন ২০১৯ উপলক্ষে বোরহানউদ্দিন উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে জনসচেতনতা মূলক র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১০টায় সারা বাংলাদেশে একযোগে ১০০টি বহুমুখি ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর সাথে বোরহানউদ্দিন কামিল মাদ্রাসা বহুমুখী ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রটিও উদ্বোধন করা হয়। উক্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বোরহানউদ্দিন কামিল মাদ্রাসায় বিটিভির মাধ্যমে বড় টিভির পর্দায় সরাসরি উপভোগ করেন ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আলী আজম মুুকুল এমপি। এরপর বোরহানউদ্দিন কামিল মাদ্রাসা বহুমুখী ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রটি উদ্বোধন করেন এ সংসদ সদস্য। এসময় তিনি প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। তিনি একজন সৎ, নিষ্ঠাবান রাজনীতি নেতা। তাকে অনেক দেশের প্রধান অনুসরন ও অনুকরণ করছে। এটা বাংলাদেশের জন্য অনেক গর্বের বিষয়। তিনি আরোও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি একজন মমতাময়ী মা। তিনি এখন বাংলার ষোল কোটি মানুষের মা। মায়ের মত বাংলাদেশের সকল মানুষকে নিরাপদে ও শান্তি রাখছেন তিনি। তার তুলনা তিনি নিজেই। এরকম পরিশ্রমি নেতা আমি কখনও দেখি নি। তার ভাবনা বাংলার মানুষকে উন্নতির দিকে নিয়ে যাওয়া। যাদের ঘর বাড়ি নেই তাদের মাথা খোজার ঠাঁই করে দিয়েছেন তিনি। তিনি আরোও বলেন, বাংলাদেশে যত বড় বড় প্রকল্পের কাজ হয়েছে তার নেতৃত্বে রয়েছে সুযোগ্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মহান আল্লাহ তাকে বাঁিচয়ে রেখেছেন এদেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করার জন্য।

উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা খালেদা খাতুন রেখা’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন হায়দার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রাসেল আহমেদ, বোরহানউদ্দিন থানা অফিসার ইন-চার্জ ম. এনামুল হক, বোরহানউদ্দিন কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা এবি আহম্মদ উল্ল্যাহ আনসারী প্রমূখ সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান। অনুষ্ঠান শেষে দিবসটি উপলক্ষে জনসচেতনতামূলক র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর, দুর্যোগ ও ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় বাস্তবায়নে এ আশ্রয় কেন্দ্রটি ৩ তলা বিশিষ্ট ২ কোটি ১ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়।