বাউফলে প্রভাবশালীদের দখলে কোটি টাকার সরকারি খাস জমি

অতুল পাল: পটুয়াখালী বাউফলে শতাধিক পটুয়াখালীর বাউফলে প্রভাবশালীদের দখল থেকে কোটি কোটি টাকার সরকারি খাসজমি দখলমুক্ত করার জন্য আবদুস সোবহান নামের এক ব্যাক্তি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে আবেদন করেছেন। গতকাল ২২ অক্টোবর এই আবেদন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে (গ্রহণ করার নম্বর ৭৮১২০১৯১০২২-০২) ওই আবেদন দেয়া হয়। আবেদন সূত্রে জানা গেছে, বাউফল পৌরসভার দুই নম্বর ওয়ার্ড সংলগ্ন কালাইয়া-কালিশুরী খাল এবং গোলাবাড়ি-দ্বিপাশা খালের দুই পাড়ে ৫২১, ৫২৬, ১২৭ ৫০৪ এবং ৫৪৫ খতিয়ানের প্রায় এক একর ২০ শতাংশ জমি দখল করে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, ব্যাংকার, এ্যাডভোকেট এবং সাংবাদিকসহ বেশ কয়েক প্রভাবশালী অবৈধ স্থাপণা নির্মাণ করেছেন। যার বর্তমান বাজার মূল্য কয়েক কোটি টাকা। সরকারি এই জমি দখলকারীদের মধ্যে রয়েছে ওহাব মিয়া, জাকির হোসেন, আলিম গাজী, নাসির মিয়া, গোলাম মোস্তাফা, মহিউদ্দিন, হেমায়েত উদ্দিন, আলী হোসেন সরদার, খোকা মিস্ত্রি, জালাল মিস্ত্রি, আনিচুর রহমান, শাহজাদা মিয়া, রশিদ সরদার, শাহজাহান সিরাজ, আল-মামুন, লিটু মিয়া, রফিকুল ইসলাম এবং শহিদুল ইসলামসহ আরো একাধিক প্রভাবশালী ব্যাক্তি। এই প্রভাবশালীদের উপর মহলে হাত থাকার কারণে স্থানীয় প্রশাসনও তাদের অবৈধ স্থাপণা উচ্ছেদ করতে পারছেন না। স্থানীয়রা জানান, খালের পাড় দখলের কারণে দুইটি খালই মরে গেছে। যার কারণে বাউফল পৌর শহরসহ পাশ্ববর্তী অনেক এলাকার পানি নিস্কাশন বন্ধ হয়ে মারাতœক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। খাল কিংবা জলা দখল কিংবা লিজ দেয়া যাবে না মর্মে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা থাকলেও ওই প্রভাবশালীরা সেটা মানছেন না। খাস জমি দখল করার কথা স্বীকার করে বাউফল ভূমি অফিসে কর্মরত সার্ভেয়ার আবুল কালাম জানান, এবিষয়ে মাপঝোপ করা হয়েছে। শীঘ্রই জেলা প্রশাসকের কাছে প্রতিবেদন দেয়া হবে। জেলা প্রশাসক মো. মতিউল ইসলাম

চৌধুরী জানান, আমি এখনো আমি দেখিনি। ডাক ফাইলে আবেদন থাকতে পারে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট বিভাগকে দায়িত্ব দেয়া হবে।