উল্লাপাড়ায় দু’টি সড়ক এখন জনগনের কাছে দুর্ভোগ

সাহারুল হক সাচ্চু: প্রায় এক দশক আগে আলাদা দু’টি সড়ক পাকাকরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। ঠিকাদারের মাধ্যমে কাজ শুরু হয়েছিল। প্রায় অর্ধেক কাজ হওয়ার পর পরে ঠিকাদার দু’জনেই কাজ বাদ রাখেন। এরপর আর সড়ক দুটি পাকাকরণ হয়নি। বরং উল্টো খানা খন্দকে ভরপুর সড়ক দুটি হয়েছে এখন জনগনের কাছে দুর্ভোগের। স্থানীয় প্রকৌশল বিভাগ সুত্রে, বিগত ২০০৯-১০ অর্থ বছরে জগজীবনপুর আলমের দহ থেকে আঙ্গারু ৯শ ৫০ মিটার এবং বোয়ালিয়া বাজার থেকে দুর্গাপুর ঘাট প্রায় দু’কিলোমিটার কাচা সড়ক পাকাকরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। স্থানীয় এলজিইডি থেকে সড়ক দুটি পাকাকরণের উদ্যোগ নেওয়া ও অনুমোদন হয়। এরপর প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ ও যথাযথ নিয়মে দরপত্রের মাধ্যমে কাজ পাওয়া ঠিকাদার দু’জন নির্মাণ কাজ শুরু করেন। জানা যায়, বোয়ালিয়া-দুর্গাদহ ঘাট সড়কটি পাকা করনে সে সময় বরাদ্দ ছিল প্রায় ৭৯ লাখ টাকা এবং আমিনুল ইসলাম লিয়াকত নামে একজন ঠিকাদার এ কাজ শুরু করেন। এ সড়কে ইটের খোয়া বিছানোর পর ঠিকাদার অজ্ঞাত কারনে পাকাকরণের কাজ আর করেননি। এদিকে জগজীবনপুর আলমের দহ থেকে আঙ্গারু কাচা সড়ক পাকাকরণের কাজ শুরু করেন ঠিকাদার মোহাম্মদ আলী। এ সড়কেও ইটের খোয়া বিছানোর পর ঠিকাদার পাকাকরণের কাজ বন্ধ রাখেন। স্থানীয় এলজিইডি অফিস থেকে সড়ক দুটি পাকা করনে ঠিকাদার দুজনকে বার বার তাগিদ দিলেও তারা কাজ বাদ রাখেন। আঙ্গারু সড়ক পথে প্রতিনিয়ত বহু সংখ্যক ভ্যান ও সাধারন জনগন চলাচল করে থাকে। এ সড়কে ইটের খোয়্ধাসঢ়; অনেক জায়গাতেই উঠে বড় ছোট গর্ত হয়েছে। গত প্রায় ৮ মাস আগে স্থানীয়রা অর্থ তুলে সড়কটির কিছু অংশ সংস্কার করেন। এ সড়কে রিক্সাভ্যানে চলতে যাত্রীদেরকে ক’জায়গায় নেমে পায়ে হেটে চলতে হয়। আবার যাত্রীদেরকেই রিক্সাভ্যানগুলো ঠেলে খানাখন্দকগুলো পার করে দেয়। স্থানীয় বসতি শাহ আলম সরকার বলেন, এলাকার জনগনের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগের অবসানে গুরুত্বপুর্ণ সড়কটি জরুরীভাবে পাকা করনের দরকার রয়েছে। বোয়ালিয়া দুর্গাদহ ঘাট সড়কেরও একই বেহাল দশা। স্থানীয় একটি ইট ভাটায় ট্রাক চলাচলে বেহালদশা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা রুবেল আলম জানান, সড়কটি বেহালদশায় তাদেরকে দুর্ভোগের মাঝেই চলাচল করতে হচ্ছে। উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ মনিরুল ইসলাম জানান, দু’টি সড়কেরই পাকাকরণে এরই মধ্যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।