পাবনায় পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ: তিনজনের কারাদন্ড

কামাল সিদ্দিকী: পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার টলট গ্রামের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। এ ঘটনায় ঘটক, বরের চাচা ও বন্ধুসহ তিনজনকে কে আটক করে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।
ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, আজ শুক্রবার (২৫ অক্টোব) বিকেলে উপজেলার টলট গ্রামের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীর বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। এ সংবাদের ভিত্তিতে বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হন ইউএনও এসএম জামাল আহমেদ। তার উপস্থিতি বুঝতে পেরে মেয়ের বাবা ও বরসহ অনেকেই পালিয়ে যায়। বিয়ে দেওয়ার চেষ্টায় ঘটক ইসমাইল হোসেন (৫৫), বরের চাচা আনোয়ার হোসেন (৩২) ও বন্ধু শাহীন শেখকে আটক করা হয়। পরে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজেস্ট্রেট ও ইউএনও এসএম জামাল আহমেদ প্রত্যেককে একমাস করে কারাদণ্ড প্রদান করেন।
ওই ছাত্রীকে বয়স না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে মুচলেকা নিয়ে মা হাসিনা খাতুনের জিম্মায় দেওয়া হয়। সাজাপ্রাপ্ত তিনজনকে সাঁথিয়া থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছ।
এছাড়াও ওই ছাত্রীকে শিক্ষার খরচ দেওয়ার ঘোষণা দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জামাল আহমেদ। তিনি বলেন, ‘উপজেলার টলট গ্রামে বাল্য বিয়ে হচ্ছে এমন সংবাদে ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে বিয়ের আসর থেকে ঘটক ও বরের আত্বীয়দের আটক করি। পরে তাদের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, সাজাপ্রাপ্তদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।