লক্ষ্মীপুরে ২৫ কোটি টাকার কলা উৎপাদন, অল্প পুঁজিতে লাভবান হচ্ছেন চাষীরা

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে কলা চাষাবাদ করে লাভবান হচ্ছেন চাষীরা। এতে করে এ অঞ্চলে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে কলার আবাদ। আবার অনেকেই বাড়ীর পাশে পতিত জমিতেও কলার আবাদ করে বাড়তি আয়ের পথ সুগম হওয়ায় স্বাবলম্বী হচ্ছেন। স্বল্প পুঁজিতে লাভ বেশি হওয়ায় দিন দিন কলা চাষাবাদে আগ্রহ বাড়ছে এ অঞ্চলের কৃষকদের। এখানকার উৎপাদিত কলার গুণগতমান ভালো থাকায় এর চাহিদাও রয়েছে বেশ। এতে কলার দাম ভালো পেয়ে খুশি এ অঞ্চলের কৃষক। এবার উৎপাদিত কলা থেকে ২৫ কোটি টাকা আয় হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষি বিভাগ। জানা যায়, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চররমনীমোহন, টুমচর, ভবানীগঞ্জ, কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ, চরলরেঞ্চ, চর কালকিনি, রামগঞ্জ উপজেলার পানপাড়া ও রামগতি উপজেলার চরগজারিয়াসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে বাংলা, চাঁপা, আনাজ ও সরবীসহ বিভিন্ন জাতের কলার আবাদ হয়ে থাকে। স্বল্প খরচে লাভ বেশি হওয়ায় দিন দিন এ অঞ্চলে কলা চাষে আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের। চাষীরা জানান, কলা চাষে তাদের খুব বেশি খরচ হয় না। কলা আবাদে সার ও কীটনাশক ঔষধও তেমন ব্যবহার করতে হয় না। এতে উৎপাদন খরচের তুলনায় লাভ বেশি হওয়ায় কলা চাষে আগ্রহ বাড়ছে তাদের। সদর উপজেলার মজু চৌধুরীর হাট ও পানপাড়া এলাকার শাহীন, খোরশেদ, নিরব ও নজিরসহ কয়েকজন কলা চাষী জানান, স্বল্প খরচে কলার আবাদ করে ভালো আয় করা যায়। তাছাড়া এঅঞ্চলের কলার গুণগতমান ভালো থাকায় এর বেশ চাহিদাও রয়েছে বেশ। এতে বাজার দর ভালো পেয়ে খুশি তারা। তবে স্থানীয় কৃষি অধিদপ্তরের প্রয়োজনীয় পরামর্শ পেলে কলা চাষে আরো বেশি ভাল করতে পারতেন বলে জানালেন কৃষকরা। এদিকে খুচরা বিক্রেতারাও জানালেন, বাজারে দেশিয় জাতের বাংলা কলার বেশ চাহিদা রয়েছে। দামও রয়েছে ভালো। এতে করে কলা চাষীদের পাশাপাশি লাভবান হচ্ছেন তারাও। এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর কৃষি সম্প্রারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক কৃষিবিদ কিশোর কুমার মজুমদার জানান, লক্ষ্মীপুরে ৪’শ হেক্টর জমিতে কলা বাগান রয়েছে। স্বল্প খরচে লাভ বেশি হওয়ায় দিন দিন এঅঞ্চলে কলা চাষে আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের। তাছাড়া কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকেও কলা চাষীদের বিভিন্ন ধরনের সহায়তা দেয়া হচ্ছে। এবার উৎপাদিত বিভিন্ন জাতের কলা থেকে ২৫ কোটি টাকা আয় হবে বলে জানালেন এই কর্মকর্তা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কৃষকদের মাঝে উন্নত জাতের কলার চারা সরবরাহ করা গেলে এ অঞ্চলে কলার আবাদ যেমন বাড়বে, তেমনি কলা চাষে আরো বেশি লাভবান হবেন কৃষক।