ক্ষেতলালের ঐতিহাসিক আছরাঙ্গা দিঘী হারাতে বসেছে সৌন্দর্য

আতিউর রাব্বী তিয়াস: জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার ঐতিহাসিক আছরাঙ্গাদিঘীর সৌন্দর্য বর্ধন ও পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার লক্ষ্যে দিঘীর চার পাড়ে প্রায় পাঁচ হাজার ফলজ, বনজ ও ভেষজসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে ওই সব গাছ গুলো তদারকি ও পরিচর্যার অভাবে তার সৌন্দর্য হারাতে বসেছে। এ দিকে ডালা-পালা বিহিন কাঁঠাল গাছ গুলো লড়াই করে বেচেঁ থাকলেও এলাকার কিছু অর্থলোভী অসাধু লোকজন কাঁঠাল গাছের ডাল ও পাতা কর্তন করে বিভিন্ন হাট বাজারে ছাগলের খাদ্য হিসাবে দেদারছে বিক্রি করছে। ফলে গাছ প্রয়োজনীয় খাদ্যাভাবে কাঙ্খিত কান্ড ও ফল উৎপাদনের সক্ষমতা হারিয়ে ফেলছে। সরজমিনে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীর সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার মামুদপুর ইউনিয়নে রসুলপুর মৌজায় ৮১৭ খ্রিষ্টাব্দে প্রাচীন এই দিঘীটি খনন করা হয়। ১০৭০ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ১০০০ ফুট প্রস্থ্য বিশিষ্ট এই দিঘীটি কে খনন করে তা নিয়ে অনেক মত পার্থক্য রয়েছে। জনশ্রুতি মতে জমিদার মহারাজদের হুকুমে রাজেন্দ্র রায় এ দিঘীটি খনন করেন। অনেকের মতে তাহেরপুর রাজ পরিবারের সদস্য মনু ভুট্ট এই দিঘীটি খনন করেন। যার মালিক ছিল রাজ বংশের রাজা কংশ নারায়ন রায়। রাজ পরিবারের গোসল ও পানি ব্যবহারের সুবির্ধার্থে দিঘীটির চারি দিকে ৫০ ফুট দৈর্ঘ্যর চারটি ঘাট নির্মান করা হয়। যা এখন ও বিদ্যমান রয়েছে। দীর্ঘদিন পর্যন্ত অযতœ অবহেলায় দিঘীটি তার নান্দনিক সৌন্দর্য হারাতে বসে। ফলে ১৯৯২ সালে তৎকালিন সরকার দিঘীর সংস্কার ও পুর্ন খনন কাজ করেন। খনন কালে ১২ টি মূল্যবান মূর্তি পাওয়া যায় যা বর্তমানে দেশের বিভিন্ন যাদুঘরে সংরক্ষিত রয়েছে।

তৎকালিন সরকারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া আছরাঙ্গা দিঘী সফরে এসে ঐতিহাসিক এই দিঘীটি শিক্ষা বিনোদন ও পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার ঘোষনা দেন। দিঘীর চার পাড়ে প্রায় পাঁচ হাজার ফলজ, বনজ ও ভেষজসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানোর পর দিঘীর নান্দনিক সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়। এলাকার বিনোদন প্রিয় মানুষ ও স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা এখানে দেখতে আসেন। কিন্তু বর্তমান এই ঐতিহাসিক দিঘীর গাছ গুলি পরিচর্যা ও তদারকির অভাবে গাছের স্বাভাবিক বৃদ্ধি হ্রাস পাচ্ছে। ফলে এক দিকে যেমন দিঘী তার নান্দনিক সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে অপর দিকে বনজ ও ফলজ গাছ থেকে প্রয়োজনীয় কাঠ এবং ফল উৎপাদনের হারিয়ে ফেলছে সক্ষমতা। এ ছাড়া এলাকার অসাধু লোকজন দিঘীর দক্ষিণ পশ্চিম পার্শ্বের অধিকাংশ কাঁঠাল গাছের ডাল ও পাতা কর্তন করে জামালগঞ্জ, গোপিনাথপুর, ইটাখোলা, আক্কেলপুরসহ জয়পুরহাট জেলা সদরের নতুন হাটে দেদারছে গরু ও ছাগলের খাদ্য হিসাবে বিক্রি করছে। আক্কেলপুর উপজেলার জামালগঞ্জ এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কিশোরের সাথে কথা হলে সে বলেন, আছরাঙ্গা দিঘী থেকে কাঁঠাল গাছের পাতা কর্তন করে জামালগঞ্জ হাটের দিন আটিঁ বেধে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা বিক্রি করি। কাঁঠাল গাছ সহ অন্যান্য গাছের ডাল পাতা ইচ্ছামত কাটলে কেউ নিষেধ না করায় প্রায় সময় আমি এখান থেকে কাঁঠাল পাতা সংগ্রহ করি। ঐতিহাসিক দিঘীতে ঘুড়তে আসা উপজেলার সমন্তাহার গ্রামের রুমী চৌধুরী বলেন, উপজেলার একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র এই দিঘীর চার পাশে বিভিন্ন জাতের গাছ ও পাখিদের কলকাকলিতে মূখরিত এমন দৃশ্য দেখে মনটা ভরে উঠেছে। অন্যদিকে ডাল পালা বিহিন কাঁঠাল গাছ মৃত গাছের ন্যায় দাঁড়িয়ে আছে। ডাল ও পাতা কাটার কারনে কাঁঠাল গাছ গুলো মরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলার পাঁচখুপী গ্রামের নাসির উদ্দিন বলেন, প্রতিনিয়ত এভাবে গাছের ডাল ও পাতা কর্তন করা হলে দিঘীর সৌন্দর্য হারিয়ে যাবে। দ্রুত পরিচর্যা ও নজরদারী বাড়িয়ে গাছ গুলো রক্ষা করলে দিঘীর সৌন্দর্য বৃদ্ধিসহ ভ্রমন ও বিনোদন প্রিয় দর্শনার্থীদের আগমন ঘটবে।

স্থানীয় মামুদপুর ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান শামীমের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এলাকার কিছু লোকজন ফলবান বৃক্ষের ডালপালা কর্তন করে গরু, ছাগলের খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করছে। দূর দূরান্ত থেকে কিছু লোক এসে ডাল ও পাতা কর্তন করে বিক্রি করার খবর পাওয়ার গেছে। এ সব বৃক্ষ রক্ষা করার জন্য ইতিমধ্যে প্রশাসন কে অবহিত করা সহ স্থানীয় ভাবে প্রতিহত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে ক্ষেতলাল উপজেলা বন বিভাগে গত এক সপ্তাহ ধরে যোগাযোগ করেও ফরেষ্ট অফিসারকে পাওয়া যায়নি,তার সেল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়।