আক্কেলপুর রেলস্টেশনে পকেটমারের উৎপাত! যাত্রীদের মধ্যে হতাশা

আতিউর রাব্বী তিয়াস: প্রতিদিন দুই জেলার চার উপজেলার ট্রেন যাত্রীরা জয়পুরহাটের আক্কেলপুর রেল ষ্টেশন দিয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করেন। কিন্তু প্রায় প্রতিদিনই এখানে পকেটমারের শিকার হতে হয় যাত্রীদের। এই ষ্টেশন থেকে ট্রেনে চড়লেই যাত্রীদের পকেট ও ব্যাগ থেকে টাকা মুঠোফোন মুল্যবান কাগজপত্রসহ কিছু না কিছু খোয়া যাচ্ছে। এতে করে যাত্রীদের মধ্যে হতাশা বাড়ছে। পকেটমারদের উৎপাত এই ষ্টেশনে এতই বেড়েছে যা বলা বাহুল্য। এই জন্য ট্রেনে ভবন করা দুষ্কর হয়ে পড়েছে যাদত্রীদের। রেলওয়ে থানার পুলিশ এ ব্যাপারে কোন অভিযোগ পায়নি জানালেও ভুক্তভোগীরা বলেছেন উল্টো কথা। তারা জানিয়েছেন সান্তাহার পুলিশকে জানালেও কোন লাভ হয় না। আক্কেলপুর রেলওয়ে ষ্টেশনে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা (সিসিটিভি) থাকার পরেও পকেটমারদেরকে সনাক্ত করা পারছে না কর্তৃপক্ষ। আক্কেলপুর রেলষ্টেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও যাত্রীদের সাথে কথা বলে জানাগেছে,আক্কেলপুর ষ্টেশনে একটি পকেটমার সংঘবদ্ধ চক্র গড়ে উঠেছে। গত এক মাসে এ ষ্টেশনে অর্ধশতাধিক ট্রেনযাত্রীদের তিন লক্ষাধিক টাকা,মুঠোফোন ও মুল্যবান কাগজপত্র খোয়া গেছে। বিশেষ করে ঢাকাগামী ট্রেনে পকেটমারে ঘটনা ঘটছে বেশী। রেল ষ্টেশনের ১৩ টি পয়েন্টে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো আছে। ষ্টেশন মাষ্টারের রুমে রয়েছে মনিটর।সেখান থেকে পুরো রেলষ্টেশন পর্যবেক্ষণ করা হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত পকেটমারে সংঘবদ্ধ চক্রের কাউকেই চিহিৃত করা যায়নি। আক্কেলপুর রেলষ্টেশনে যাত্রাবিরতি দেয় এমন ট্রেনগুলো হলো ঢাকা পঞ্চগড়গামী আন্তনগর দ্রতযান এক্সপ্রেস,ঢাকা চিলাহাটীগামী আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস,খুলনা চিলাহাটিগামী আন্তঃনগর রুপসা ও সীমান্ত এক্সপ্রেস,রাজশাহী-চিলাহাটি আন্তঃনগর বরেন্দ্র এক্সপ্রেস একই রুটের আরেকটি ট্রেন তিতুমীর এক্সপ্রেস,খুলনা-চিলাহাটি গামী রকেট মেইল ও রাজশাহী-পার্বতীপুরগামী ্ধসঢ়;উত্তরা মেইল ট্রেন।

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর ও ক্ষেতলাল এবং নওগাঁর বদলগাছী ও পত্বীতলা এই চারটি উপজেলা যাত্রীরা এই ষ্টেশন দিয়ে নিয়মিত যাতায়াত করেন। ভুক্তভোগীরা জানান,সংঘবদ্ধ পকেটমার চক্রের দু-একজন সদস্যরা আগে থেকেই রেলষ্টেশনে অবস্থান করে ট্রেন যাত্রীদেরকে টার্গেট করেন। টার্গেট যাত্রীরা কে কোন বগিতে উঠবেন তা যাত্রীদের কাছ থেকে কৌশলে জেনে নেয়া হয়। পকেটমারেরা তাদের দলের অন্য সদস্যদেরকে সেই তথ্য জানিয়ে দেন। এর পর পকেটমারের সংঘবদ্ধ চক্ররা ট্রেনেরবগির দরজায় ভিড় জমায়। ট্রেনযাত্রীরা তারাহুড়ো করে ট্রেনে উঠার সময় পকেটমার দলের সদস্যরা যাত্রীর টাকা মুঠো ফোন,ব্যাগ ও মুল্যবান কাগজপত্র তুলে নেন। কেউ কেউ ট্রেনে উঠার পর আবার কেউ গন্ত্যেব্যে পৌছার পর জানতে পারে আমার এমন ক্ষতি হয়েছে। পকেটমারের শিকার আক্কেলপুর উপজেলা আরকে দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ গোলাম আজম বলেন,গতমাসে আমরা ২০/২২জন আক্কেলপুর রেলষ্টেশন থেকে দ্রুতযান ট্রেনে উঠে ঢাকায় যাচ্ছিলাম এর মধ্যে ৮ জনের পকেটমার হয়েছে। ঘটনার পর সান্তাহার রেলওয়ে পুলিশ ও আক্কেলপুর থানায় জানিয়েছিলাম কিন্তু কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। উপজেলা জাইকা প্রকল্পের সাবেক কো- অডিনেটর আব্দুল্লা তার অজ্ঞিতায় বলেন,কিছুদিন আগে ট্রেনের বগির দরজায় প্রচন্ড ভির ছিল,ট্রেনে উঠার পর দেখি আমার প্যান্টের পকেটে থাকা ছয় হাজার টাকা নেই। এভাবে আরো কয়েকজন যাত্রীর পকেট থেকে টাকা তুলে নেয়া হয়েছে। ট্রেনে থাকা পুলিশকে আমরা বিষয়টি জানিয়েছিলাম তাতে কোন লাভ হয়নি। ভান্ডারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফিরোজ হোসেন বলেন,ট্রেনে ঢাকায় যাচ্ছিলাম। ট্রেনে উঠার পর দেখি পকেটে থাকা ৫০ হাজার টাকা নেই। আক্কেলপুর রেলষ্টেশন মাষ্টারের রুমে গিয়ে সিসিটিভি ফুটেজ দেখতে চেয়েছি কিন্ত কর্তৃপক্ষ দেখায়নি। আক্কেলপুর রেলওয়ে ষ্টেশন উন্নয়ন কমিটির সভাপতি ও উপজেলা পরিণদের সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ারুল গক বাবলু বলেন, ষ্টেশন মাষ্টারসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে এই সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসতে হবে। এ বিষয়ে আক্কেলপুর রেলওয়েষ্টেশন মাষ্টার হাসিবুল ইসলাম বলেন,ইদানিং প্রায় প্রতিদিনই যাত্রীদের পকেটমারের ঘটনা শোনা যাচ্ছে। ট্রেনের বগির ভিতরে এসব পকেটমার হচ্ছে বলে সিসিটিভিতে দেখা যাচ্ছে না। সান্তাহার রেলওয়ে থানার পরিদর্শক মনজের আলী বলেন,আক্কেলপুর ষ্টেশনে পকেটমারের ঘটনা আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে কেউ অবিযোগও করেন নি।

Previous articleভূঞাপুরে সাংবাদিকদের উপর হামলার মূলহোতা ফজল মন্ডল গ্রেফতার
Next articleহাসপাতাল ছাড়লেন ঢাবির সেই ছাত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।