রংপুরে কলেজছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত গৃহশিক্ষক সোহেল রানা ডানে

জয়নাল আবেদীন: বিড়ি শিল্প নগরি হিসেবে খ্যাত রংপুরের হারাগাছে কলেজছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত গৃহশিক্ষক সোহেল রানাকে অনেক নাটকীয় ঘটনার পর অবশেষে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থানার ওসি নাজমুল কাদেরকেও প্রত্যাহার করা হয়েছে। সোমবার রাতে তাকে ধর্ষককে গ্রেফতার খবর নিশ্চিত করেছেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (মাহিগঞ্জ জোন) ফারুক আহমেদ। জানা যায়, শনিবার হারাগাছের চোরমারা বটেরতল এলাকায় গৃহশিক্ষক সোহেল রানা কৌশলে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই কলেজ ছাত্রীর অভিভাবকরা পুলিশে খবর দিলে পলাতক শিক্ষককে আটক করে পুলিশ কিন্তু থানার ওসি আইনি ব্যবস্থা না নিয়ে ওইদিন মধ্যরাতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা রাকিবুল হাসান পলাশ ও একই দল থেকে নির্বাচিত কাউন্সিলর মাহবুবুর রহমানের হাতে ধর্ষককে তাদের তুলে দেয়। পরদিন রোববার মধ্যরাতে হারাগাছ ইউপি কার্যালয়ে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি থামা চাপা দেয়ার চেষ্টা করে পুলিশ। বিচার বসানো হয় বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ও তার পরিবারের সদস্যরা।ধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে হারাগাছ থানার ওসির ভূমিকা নিয়ে সচেতন মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। প্রথমে পুলিশ মামলা নিতে না চাইলেও পরে বিক্ষুদ্ধ জনতা থানায় গিয়ে পুলিশকে বাধ্য করে ধর্ষন মামলা গ্রহনে। একই সাথে দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামি সোহেল রানাকে গ্রেফতার করে।এঘটনা সর্বত্র জানাজানি হলে মেট্রোপলিটন পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ হারাগাছ থানার ওসি নাজমুল কাদেরকে থানা থেকে প্রত্যাহার করে ।