রংপুর জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি আলু চাষ, বাম্পার ফলনে খুশি কৃষকেরা

জয়নাল আবেদীন: রংপুর জেলায় চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি আলু চাষ করা হয়েছে। কৃষকেরা আলুর বাম্পার ফলনে খুশি। কৃষকেরা জানায়, হিমাগার মালিকেরা বাধা সৃষ্টি না করলে আলুর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে রংপুরের পাঁচ জেলায় ৮৬ হাজার ৬শ ৪২ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। চাষ করা হয়েছে ৯২ হাজার ৬শ ৭৫ হেক্টর জমিতে। এবার রংপুর অঞ্চলে আলুর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ২২ লাখ ৬৩ হাজার ৮শ ৯৭ মেট্রিক টন। যা গত বছর ছিলো ২৩ লাখ ৩২ হাজার ৮শ ৩১ মেট্রিক টন।আলু চাষিরা বলছেন, গত বছরে আলুর ভালো দাম আর এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ফলন ভালো হয়েছে। আর এরই মধ্যে আগাম জাতের আলু তোলার কাজ শুরু হয়েছে।পীরগাছা উপজেলার দেউতি এলাকার কৃষক আতিয়ার রহমান জানান, গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার ফলন ভালো হয়েছে। আগাম কিছু আলু বিক্রি করে দামও ভালো পেয়েছেন। একই এলাকার সফর উদ্দিন জানান, তিনি পনের একর জমিতে আলুর চাষ করেছেন। ভালো ফলন হয়েছে।রংপুর অঞ্চলে গ্রানোলা, লরা, মিউজিকা, ক্যারেজ, রোমানা ও ফাটা পাকরি চাষ করেছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলু আবাদ হয়েছে রংপুরে এবং সবচেয়ে কম লালমনিরহাট জেলায়। আসছে মার্চ মাসের শেষের দিকে জমিতে আলু উত্তোলন শেষ হবে বলে জানান কৃষি বিভাগ।চলতি মৌসুমে রংপুর কৃষি অঞ্চলের পাঁচ জেলার মধ্যে রংপুরে ৫০ হাজার ৬৬৫ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে। এছাড়া নীলফামারী ২১ হাজার ৭৩৫ হেক্টর, গাইবান্ধায় ৯ হাজার ৩০, কুড়িগ্রামে ৬ হাজার ৪৪৫ এবং লালমনিরহাট জেলাতে ৪ হাজার ৮শ’ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে বলে জানান রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যান বিশেষজ্ঞ কৃষিবিদ খোন্দকার মেসবাহুল ইসলাম। তিনি জানান, কৃষকরা আলুর ফলন ভালো পেয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট উৎপাদনের ১২ হাজার ৩শ’ ৮৬ হেক্টর জমির আলু উত্তোলন করা হয়েছে। ২২ লাখ ৬৩ হাজার ৮শ” ৯৭ মেট্রিক টন উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে ২ লাখ ৩৮ হাজার ৯৪৮ মেট্রিক টন বাজারজাত হয়েছে। মাঠে রয়েছে প্রায় ২০ লাখ মেট্রিক টন। রংপুর অঞ্চলে আলু সংরক্ষনে ৬৭টি হিমাগার রয়েছে। এরমধ্যে ৪০টি হিমাগার রয়েছে রংপুরে এবং ১০টি নীলফামারী জেলার মধ্যে। বাকি তিন জেলায় ১৭টি হিমাগার রয়েছে।