বেলকুচিতে স্কুলছাত্রীকে আটকে রেখে ধর্ষণ : নৈশ প্রহরীর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

এম এ মুছা: স্কুলছাত্রীকে অপহরণ ও বাড়িতে আটকে রেখে ধর্ষণের ঘটনায় সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে ইষ্টিবেন মারাক নামে এক উপজাতি নৈশ প্রহরীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। একই সাথে ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরও তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে সিরাজগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক ফজলে খোদা মোঃ নাজির এই কারাদন্ড প্রদান করেন। দন্ডপ্রাপ্ত ইষ্টিবেন মারাক শেরপুর জেলার ঝিনাইগাঁতী উপজেলার মরিয়ম নগর ভারুয়ামারী গ্রামের উপজাতি অপেন্দ্র চিরানের ছেলে।

এই আদালতের স্পেশাল পিপি শেখ আব্দুল হামিদ লাভলু ও এপিপি আনোয়ার পারভেজ লিমন এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলার অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, ইষ্টিবেন মারাক বেলকুচি উপজেলার চন্দ্রগাতী গ্রামের বাজারে নৈশ প্রহরী হিসেবে চাকুরী করা অবস্থায় একই গ্রামের ৮ম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীকে স্কুলের যাতায়াতের পথে উত্যাক্ত করতো। ২০০৬ সালের ৪ মে সন্ধ্যায় স্কুল ছাত্রী বাড়ি থেকে বের হয়ে পাশে দোকানে যাচ্ছিলো।

এসময় ইষ্টিবেন মারাক স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করে তার নিজ বাড়ি শেরপুরে নিয়ে যায়। বাড়িতে আটকে রেখে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করতো সে। এঘটনায় স্কুল ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে বেলকুচি থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার মরিয়ম নগর ভারুয়ামারী গ্রামে ইষ্টিবেন মারাকের বাড়িকে অভিযান চালিয়ে স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার ও ইষ্টিবেন মারাককে গ্রেফতার করে। ইষ্টিবেন মারাক জামিনে গিয়ে পলাতক হন।

দীর্ঘস্বাক্ষ্য প্রমাণ শেষে আদালত ইষ্টিবেন মারাককে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো তিন মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন।