এনায়েতপুরে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষুদ্র কাপড় ব্যবসায়ী নিঃস্ব, প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার খুকনীতে একটি আকষ্মিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এক দরিদ্র তাঁত কাপড় ব্যবসায়ী পরিবার নিঃশ্ব হয়ে গেছে। তার থাকার ২টি ঘর ও ঘরে থাকা বিক্রির জন্য রাখা কাপড়, নগদ অর্থ, গহনা সহ প্রায় ৮ লাখ টাকার যাবতীয় জিনিসিপত্র ভস্মিভুত হয়েছে। এখন পরিবারটি খোলা আকাশের নিচে অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। ভুক্তভোগী সিরাজুল ইসলামের অভিযোগ, প্রতিবেশী হাশেম হাজী লোকজন দিয়ে পরিকল্পিত ভাবে আমাকে উচ্ছেদ করতেই এই অগ্নীকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ব্যাপারে তিনি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত সোমবার রাত ১০ টার দিকে খুকনী রহমত খোলা এলাকার বাসিন্দা সাবেক ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলামের বাড়ির দক্ষিন পাশের ঘরে হঠাৎ আগুন লাগলে ঘরে থাকা তার স্ত্রী রিনা খাতুন ৩ সন্তান নিয়ে চিৎিকার দিয়ে ঘর থেকে বের হয়। তখন মুহুর্তের মধ্যেই আগুন ছড়িয়ে উত্তরের ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। এসময় ঘরে বিক্রির জন্য রাখা তাঁতের ২৪০ পিছ শাড়ী, সুতা, নগদ ১ লাখ ১৭ হাজার টাকা, ১ ভরির মত গহনা, আসবাবপত্র সহ প্রায় ৮ লাখ টাকার জিনিস পত্র পুড়ে যায়। এরপর স্থানীয়দের আধা ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আসে। এতে পুরোপুরী নিঃস্ব হয় পরিবারটি। বর্তমানে সিরাজুল ইসলাম ছোট ছেলে মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। তিনি অভিযোগ করে জানান, আমি মুলত হাসেম হাজীর বাড়িতে দুটি ঘর তুলে বেশ কয়েক বছর ধরে বসবাস করছি। হঠাৎ তিনি আমাকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের জন্য নানা হুমকী-ধমকি দিয়ে আসছিল। আমি কিছুদিন সময় চাওয়ায় তারা ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়ে রাতেই আগুন দিয়ে দুটি ঘর জ্বালীয়ে দিয়েছে। এ বিষয়ে থানায় হাসেম হাজী, তার ভাই খালেক হাজী সহ ৮ জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি। এরপরও আমাদের মারধর করার জন্য বার-বার হামলা চালাচ্ছে। বর্তমানে আমি পরিবার নিয়ে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি। আমি চাই, দ্রুত তাদের গ্রেফতার করে শাস্তি দেয়া হোক। এদিকে অভিযোগের প্রেক্ষিতে হাশেম হাজী জানান, সিরাজুল নিজেই ঘরে আগুন দিয়ে আমাদের ফাসানোর চেষ্টা করছে। বিষয়টি নিয়ে এনায়েতপুর থানার ওসি মোল্লা মাসুদ পারভেজ জানান, ঘটনাটি মর্মান্তিক। প্রাথমিক ভাবে তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।