করোনা সন্দেহ: খাটিয়া দেয়নি গ্রামবাসী, মাটির ওপর লাশ রেখেই জানাজা

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গ্রামের কবর স্থানের সামনে লাশ মাটির ওপর রেখে ছয়জন আলেম ও নিহতের দুই ভাই জানাজা পড়ে দাফন সম্পন্ন করেন।
ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার খাঞ্জাপুর গ্রামের জ্বর ও শ্বাস কষ্ট নিয়ে ইসরাইল হোসেন (৬২) নামের একজন মারা গেছে। করোনা সন্দেহে তার নমুনা সংগ্রহ করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। সেই সঙ্গে তার বাড়িটি লকডাউন করেছে উপজেলা প্রশাসন।

এদিকে করোনা আক্রান্ত সন্দেহ গ্রামের লোকজন খাটিয়া না দেওয়ায় মাটির ওপর লাশ রেখেই জানাজা পড়া হয়েছে।

ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম জানান, কালীগঞ্জ উপজেলার খাঞ্জাপুর গ্রামের পঞ্চাশোর্ধ্ব ওই ব্যক্তি গত ছয় দিন যাবৎ জ্বর, ঠান্ডা ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। হাসপাতালে না এনে তারা বাড়িতেই চিকিৎসা দিচ্ছিলেন।

শনিবার রাতে বেশি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে গভীর রাতে তার মৃত্যু হয়।

করোনা সন্দেহে তার দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করার জন্য খুলনা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেই সঙ্গে তার বাড়িটি লকডাউন করা হয়েছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

করোনার লাশ দাফনে গঠিত স্থানীয় আলেম টিমের প্রধান মাওলানা রুহুল আমীন জানান, জ্বর ও শ্বাস কষ্ট নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিকে গ্রামের লোকজন খাটিয়ার ওপর রেখে জানাজা দিতে বাধা প্রদান করে।

পরে সকাল ১০টার দিকে ওই গ্রামের কবর স্থানের সামনে লাশ মাটির ওপর রেখে ছয়জন আলেম ও নিহতের দুই ভাই জানাজা পড়ে দাফন সম্পন্ন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শামীমা শিরিন লুবনা, আরএমও ডা. সুলতান আহম্মেদ ও কোলা পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ আবুল কালাম।