বাউফলে মুগডাল তোলাকে কেন্দ্র করে তিন নারীকে পিটিয়ে জখম

অতুল পাল: বাউফলে মুগডাল তোলাকে কেন্দ্র করে তিন নারীকে প্রতিপক্ষের লোকজন বিবস্ত্র করে পিটিয়ে জখম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে একজনের ডান পা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত ওই তিন নারীকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার (৩ মে) দুপুরে উপজেলার বগা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের রাজনগর গ্রামে এঘটনা ঘটেছে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ৭২ শতাংশ (স্থানীয় ভাবে ২৪ কড়া) জমি নিয়ে স্থানীয় সত্তার হাওলাদারের সাথে ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মিজানুর রহমানের বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধীয় ওই জমি নিয়ে একাধিকবার সালিশ-বৈঠকও হয়েছে। ঘটনার দিন রোববার দুপুরে বিরোধীয় ওই জমিতে সত্তার হাওলাদারের স্ত্রী রাশিদা বেগম(৫০), ছেলে বউ লাকি বেগম(২৫) এবং ভাইয়ের মেয়ে কুলসুম বেগম (৩২) মুগডাল তোলতে যান। এসময় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমানের পরিবারের লোকজন ডাল তোলতে বাধা দেয় এবং এনিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ইউপি সদস্য মিজানুর রহমানের লোকজন ওই তিন নারীকে কিলঘুষি এবং লাথি মারতে মারতে ক্ষেতের মধ্যে ফেলে রাখে। এসময় তারা তাদের কাপড়-চোপড় খুলে শরীরের আপত্তিকর স্থানে হাত দেয়। মারামারির ঘটনায় লাকি বেগমের ডান পা ভেঙ্গে যায় বলে আহতদের পক্ষে জানানো হয়েছে। পরে স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এব্যপারে অসুস্থ্য (প্যারালাইজড) ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান জানান, রোববার বগার হাট ছিল। আমি আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ছিলাম। মুগডাল তোলার সময় তার পরিবারের মহিলা সদস্যরা বাধা দিলে উভয়ের মধ্যে টানা-হেঁচরা হয় বলে শুনেছি। ইউপি সদস্য আরো বলেন, ওই জমি আমি শংকর দাস নামের এক ব্যাক্তির থেকে কবলা রেখেছি। জমি ভোগ দখল করতে গেলে সত্তার হাওলাদারের পক্ষ ভূঁয়া নিলামের কথা বলে মানুষকে বিভ্রান্ত করে এবং আমার নামে গাছ কাটা সহ একাধিক মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছে। মারামারির সময় কোন পুরুষ লোক ছিল কি না এমন প্রশ্ন করা হলে ইউপি সদস্য বলেন, আমি জানি আমার পরিবারের মহিলা সদস্যরা বাধা দিয়েছেন। এব্যপারে এখনো কোন পক্ষ আইনের আশ্রয় নেয়নি।