চিকিৎসার বেচে যাওয়া টাকায় ২৫০ পরিবারের মাঝে ত্রান বিতরণ

মারুফা মির্জা: সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার বাক্ষ্মনগ্রামে কিডনী রোগে আক্রান্ত ব্যবসায়ী সুরুজ্জামান শামীম তার নিজের চিকিৎসার পর বেচে যাওয়া টাকায় ২৫০ পরিবারের মাঝে চাল বিতরন করেছেন। স্থানীয় সমাজ-সেবকদের মাধ্যমে তিনি সোমবার দুপুরে পরিবার প্রতি ১০ কেজি করে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চাল গুলো তুলে দিয়েছেন নিজ বাড়ি থেকে। জানা যায়, জনশক্তি বিদেশে রপ্তানী খাতের ছোট ব্যবসায়ী সুরুজ্জামান শামীম গত ৫ বছর ধরে ছিলে কিডনী রোধে আক্রান্ত। গত বছর তার ২টি কিডনী অচল হয়ে পড়ে। চরম ঝুঁকিতে পড়ে জীবন। এজন্য ৭ লাখ টাকা তার চিকিৎসার জন্য গচ্ছিত ছিল। এমন অবস্থায় গত বছরের ২৫ ডিসেম্বর তার ছেলে একটি একটি কিডনী দিয়ে জীবনে গতী ফিরিয়ে আনে। কিডনী প্রতিস্থাপন ও ৩ মাস হাসপাতালে চিকিৎসা এবং অন্যান্য মিলে সাড়ে ৫ লাখ টাকার মত খরচ হয়। এ থেকে বেচে যায় আরো দেড় লাখ টাকা। এই টাকায় তিনি সিদ্ধান্ত নেন করোনা প্রভাবে বেকার অসহায় মানুষ গুলোর পাশে দাঁড়ানোর। ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় কেনা হয় আড়াই টন চাল। পরে ২৫০ পরিবারের মাঝে কার্ড বিলি করে সোমবার সকালে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে এনায়েতপুর থানার বাক্ষ্মনগ্রামের নিজ বাড়ি থেকে দেয়া হয় এই চাল। পরিবার প্রতি ১০ কেজি করে দেয়া এই চাল বন্টনের সময় তিনি ঢাকার বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। তার পক্ষে বিতরনে সহায়তা করেন মানবিক সেবা সংগঠন সিরাজগঞ্জ একুশে ফোরামের সাধারন সম্পাদক ফজলুল হক ডনু, সমাজ সেবক নুরুল ইসলাম মাষ্টার, হাজী ফজল হক, ফজল মাতব্বর, সাবেক ইউপি সদস্য আইয়ুব আলী, আইয়ুব আলী শেখ, সাইদুল ইসলাম রাজ, প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে সুরুজ্জামান শামীম জানান, আল্লাহ আমাকে হায়াৎ দিয়েছেন বলে বেঁচে আছি। আর যতদিন টিকে আছি মানুষের জন্যই নিবেদিত থাকবো। আমি মানুষের চরম এই দুঃসময়ে সামান্য চাল নিয়ে যে পাশে দাঁড়াতে পেরেছি, এটাই আমার স্বার্থকতা।