কেশবপুরে বসতবাড়ীতে সন্ত্রাসী হামলা-ভাংচুর, লুটপাট : অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ আহত ১১

জি এম মিন্টু: কেশবপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ৭টি বসতবাড়ী ভাংচুর, নগদ টাকা ও স্বনালংকার লুট, ৬ মাসের গর্ভবতি মহিলাসহ ১১ জনকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত এজাহার দায়ের হয়েছে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চাঁদড়া গ্রামের বাসতুল্লাহ দফাদারের ছেলে মহিরের সাথে প্রতিবেশী তোফাজ্জেল মোড়লের দীর্ঘদিন ধরে আদালতে মামলা ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে গত মঙ্গলবার বিকেলে মহির দফাদারের নেতৃত্বে ৫০/৬০ ব্যক্তি বাঁশের লাঠি, লোহার রড ও দা নিয়ে তোফাজ্জেল ও তার ভাইদের বসতবাড়ীতে হামলা চালায়। এসময় তারা ৭টি বসতবাড়ী ও ১টি মটরসাইকেল ভাংচুর ও নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটপাট করে নিয়ে যায় । তাদের হামলায় ছয় মাসের গর্ভবতি মহিলাসহ মোট ১১ জন আহত হয়। আহতরা হলো -চাঁদড়া গ্রামের মোফাজ্জেল মোড়ল, ছেলে রুবেল,বৌমা আঞ্জুয়ারা বেগম, আলা উদ্দীন, তার মেয়ে ছয় মাসের অন্তঃসত্বা সনিয়া খাতুন, বদর উদ্দীন, ছেলে ওলিয়ার ,বৌমা হামিদা বেগম, নজরুল ইসলাম, স্ত্রী ফেরদৌস আরা বেগম ও ছেলে বাবুল হোসেন । এসময় হামলাকারীরা তাদের ০৭টি বাড়ী ও ওলিয়ারের ১ টি মটরসাইকেল ভাংচুর করে প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতিসাধন করে। এছাড়া তারা আলা উদ্দীনের গচ্ছিত নগদ ৫৫ হাজার ৭শ ও তার মেয়ের গলায় থাকা ৩৭ হাজার টাকা মূল্যের স্বর্ণের চেইন, হামিদা বেগমের স্বর্নের দুটি রুলি যার মূল্য ৬২ হাজার টাকা, রুবেলের স্ত্রীর ২৪ হাজার টাকার স্বর্নের কানের দুল, নজরুলের ব্যবসার ৭৫ হাজার ও ফেরদৌসী বেগমের ৪৯ হাজার টাকা দামের স্বর্নের চেইন ছিনিয়ে নিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় আহদেরকে কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আহত মোফাজ্জেল মোড়লের ছেলে লিটন বাদী হয়ে গত ১৩ মে কেশবপুর থানায়

এব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জসিম উদ্দীন জানান, মারপিট,টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাইয়ের বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি,তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।