চান্দিনায় আবারও কৃষকের ধান কেটে দিল ছাত্রলীগ

ওসমান গনি: চাষীদের বোরো কেটে দিয়ে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলা ও ইউমিয়ন ছাত্রলীগ।
করোনা সংকটে কৃষকের চলতি বোরো ধান ঘরে তুলতে কেন্দ্রিয় ছাত্রলীগের নির্দেশ মোতাবেক চান্দিনায় সক্রিয় হয়ে উঠে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।

উপজেলা জুড়ে বোরো ধান কাটা শুরু হওয়ার সাথে সাথে চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি কাজী ইয়াছিন অভি ও সাধারণ সম্পাদক কাউছার আলম আপন নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে দরিদ্র কৃষকদের পাশে দাঁড়ান।

টানা দুই সপ্তাহের শ্রমে অন্তত ৫০জন ছাত্রলীগ নেতা-কর্মী উপজেলার এতবারপুর, বরকইট, জোয়াগ সহ বিভিন্ন ইউনিয়নে দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে মানবতার ছাত্রলীগ বলে জানান দেন।
উপজেলার এতবারপুর ইউনিয়নের এতবারপুর গ্রামের কৃষক সুজন মিয়া জানান- আমি কৃষি কাজ করে কোন রকমে সংসার চালাই। এবার আমি ৫৪ শতক জমিতে বোরো ধান চাষ করি। ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি আকতার হোসেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী এনে আমার পুরো জমির ধান কেটে বাড়িতে নিয়ে মারাই করে দিয়েছে। আমি কখনও কল্পনাও করতে পারিনি স্কুল-কলেজে পড়–য়া ছাত্ররা করতে এমন কাজ পারে। তারা আমাকে এ সহযোগিতা করায় অন্তত ৪ হাজার টাকার বদলী খরচ থেকে আমি বেঁচে গেছি।

একই উপজেলার বরকইট ইউনিয়নের কৃষাণী পারভীন বেগম জানান- আমার স্বামী পঙ্গু। চলাফেরা করতে পারে না। আমার তিন মেয়ে, ছেলে নেই। ছাত্ররা এসে আমার ২৪ শতক জমির ধান কেটে বাড়ি এনে দিয়েছে।

এ ব্যপারে উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক কাউছার আলম আপন জানান- কেন্দ্রিয় ছাত্রলীগের নির্দেশে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুনতাকিম আশরাফ টিটু ভাইয়ের দিক নির্দেশনায় আমরা উপজেলা ছাত্রলীগ এক যোগে কাজ শুরু করি। তিনি আরও জানান- আমাদের ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মাধ্যমে যখন জানতে পেরেছি কোন হতদরিদ্র কৃষক তার সৃজিত ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়েছে আমার সেখানেই ছুটে গেছি। শুধু ধান কাটাই নয়, ধান মারাই করে কৃষকের ঘরে তুলে দিয়ে আসছি। যে কোন পরিস্থিতিতে চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগ এক যোগে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছি।