মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ফেরি ঘাট বন্ধ, নদীর মাঝখানে রাখা হয়েছে ফেরি

মিজানুর রহমান বাদল: মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলায় হাজারো মানুষ সরকারি নির্দেশ না মেনে ঈদে বাড়ি ফেরার আশংকায় ঘাট বন্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। গত কয়েকদিনে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষ ও গাড়ির ভিড় লক্ষ্য করে। তাই ঝুঁকি কমাতে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে ফেরি চলাচল সাময়িকভাবে বন্ধ করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিইটসি) কর্তৃপক্ষ। মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসনের অনুরোধে আজ সোমবার (১৮ মে) বেলা ১১টার দিকে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। এরপর ফেরিগুলোকে মাঝ নদীতে নিয়ে নোঙর করে রাখা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা অঞ্চলের উপ- মহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান বলেন, ফেরি চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর উভয় ঘাটে থাকা ফেরিগুলোকে মাঝ নদীতে রাখা হয়েছে। ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার সিদ্ধান্ত হলে ফেরিগুলোকে আবার ঘাটে আনা হবে।
এব্যাপারে মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. রিফাত রহমান শামীম আজকের বাংলাদেশকে জানান, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকার কথা থাকলেও তা লোকজনকে কোনোভাবেই মানানো যাচ্ছিল না। পরে বাধ্য হয়ে সোমাবর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জের গোলড়া এলাকায় চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। এ ছাড়া জরুরি পণ্যবাহী গাড়ি ছাড়া সব ধরনের গাড়ি আটকে দেওয়া হয় এবং সেগুলোকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এত চেষ্টার পরেও মানুষ বিকল্প পথে পাটুরিয়া যাচ্ছিল। এতে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ায় বিআইডব্লিউটিসি’কে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখতে অনুরোধ করা হয়।
এ পরিস্থিতি অনুকূলে আসলে ফেরি চলাচল সীমিতভাবে চালু করা হবে। যাতে পচনশীল ও জরুরি পণ্যবাহী গাড়ি পারাপার করা যায়।

এদিকে সকাল থেকে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে জরুরি পণ্যবাহী যানবাহন ছাড়া অন্য সব যান পারাপার বন্ধ রাখায় আটকা পরা ক্ষুব্দ যাত্রীরা ফেরি ঘাটের ৫ নম্বর কাউন্টার ভাঙচুর করেছে প্রাইভেটকার চালক ও যাত্রীরা। এখনও পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় দুই শতাধিক প্রাইভেটকার ও তিন শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।
বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপ-মহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ছোট বড় ১৫টি ফেরি রয়েছে। এর মধ্যে জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক পারাপারের জন্য ৫/৭ টি ফেরি চলাচল করছে। সকালে প্রাইভেটকার ও যাত্রী পারাপার বন্ধ করে দিলে চালক ও যাত্রীরা মিলে ঘাট এলাকার ৫ নম্বর কাউন্টারে ভাঙচুর চালায়।