গলায় মাংস আটকে যুবকের মৃত্যু, করোনা সন্দেহে কাছে এলেন না চিকিৎসক!

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গরুর গোশত খেতে গিয়ে গলায় আটকে যায় মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার উচুটিয়া এলাকার বাসিন্দা চঞ্চল হোসনের (২০)। পরে তাকে হাসপাতালে আনা হলেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ভেবে তার কাছেই যাননি মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের চিকিৎসকরা। এমন অভিযোগ করেছেন চঞ্চল হোসেনের স্বজনদের। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয় ওই যুবকের।

আজ বুধবার দুপুরে এ ঘটনার পর বিনা চিকিৎসায় ছেলের মৃত্যু হয়েছে দাবি করে মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের চিকিৎসকদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেছেন চঞ্চলের মা শিখা বেগম।

চঞ্চলের বোন সুমাইয়া আক্তার বলেন, ‘ঢাকায় একটি প্রেসে কাজ করে চঞ্চল। গতকাল মঙ্গলবার ফোন করে বাড়ি আসার কথা বলে সে। আজ বুধবার সকালে ঢাকা থেকে বাড়ি আসে। দুপুরে ভাত খাওয়ার সময় তাড়াহুড়া করতে গিয়ে মাংসের একটা টুকরা তার গলায় আটকে যায়। পরে তাকে মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে চঞ্চলের চিকিৎসায় কোনো চিকিৎসক কাছেই যাননি। অথচ কিছুক্ষণ পর চঞ্চল মারা গেছে বলে জানানো হয় হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে।’

তবে মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক মোহাম্মদ মাহফুজ বলেন, ‘হাসপাতালে আনার আগেই চঞ্চলের মৃত্যু হয়। ইসিজি করে বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে রোগীর স্বজনদের জানানো হয়।’