প্রধান শিক্ষক শাহআলম ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী আলিমা খাতুন এবং তাদের ছেলে ও মেয়ে।

তাবারক হোসেন আজাদ: প্রথম স্ত্রী মারা যাওয়া ও বিভিন্ন লোভ দেখিয়ে আলিমা খাতুনকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন স.প্রা.বি’র প্রধান শিক্ষক শাহ আলম। সংসারে ১৩ বছরে মেয়ে ও ১০ বছরের মেয়ে রয়েছে। মাঝে মাঝে দরিদ্র পরিবারের মেয়ে ভাড়া বাড়িতে বসবাস করা আলিমার সাথে সময় দিয়ে আবার প্রথম স্ত্রীর কাছে চলে যায় শাহআলম। কিন্তু গত দুই বছর যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়ায় চরম বিপদে পড়েছে আলিমা ও তার দুই সন্তান। তাই বিষয়টি সমাধান এবং স্ত্রী ও সন্তানদের স্বীকৃতি পেতে জেলা সদর শিক্ষা কর্মকর্তা, দুর্ণীতি দমন কমিশন ও রায়পুর প্রেসক্লাবে লিখিত অভিযোগ করেছেন আলিমা।।।

অভিযোগকারি আলিমা খাতুন লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার উত্তর চরআবাবিল ইউপির চর আবাবিল গ্রামের আলী আহাম্মদের মেয়ে। অভিযুক্ত মোঃ শাহ আলম সদর উপজেলার জগন্নাতপুর গ্রামের রহিম ভুঁইয়ার বড় ছেলে ও গোবিন্দপুর স.প্রা. বি’র বর্তমান-প্রধান শিক্ষক।

রোববার (৩০ আগষ্ট) অসহায় আলিমা খাতুন জানান, তার ভগ্নিপতির মাধ্যমে-২০০৬ সালে প্রথম স্ত্রী মারা যান ও বিভিন্ন লোভ দেখিয়ে আলিমাকে বিয়ে করে শাহআলম। কিন্তু শাহ আলম বিভিন্ন সমস্যার কথা বলে আরিমাকে তার বাবার বাড়ীতে থাকতে বাধ্য করেন। কয়েক বছর পর জানতে পারেন শাহ আলমের প্রথম স্ত্রী বেঁচে আছেন ও তার চার সন্তান রয়েছে। পরে আলিমা তার স্বামী শাহ আলমের বাড়ীতে গিয়ে শশুর-শাশুরীসহ পরিবারের সবাইকে ঘটনাটি জানালে তারা কেও বিষটি সমাধা না দিয়ে তাড়িয়ে দেয়। পরে শাহআলম অবস্থা বেগতিক দেখে আলিমা ও তার দুই সন্তানকে গত ৫/৬ বছর হায়দরগন্জ বাজারের পাশে একটি ভাড়া বাসায় রাখে। মাসে ৩/৪ হাজার টাকা সংসার খরচ দিলেও গত দু’বছর কোন খোঁজ খবর না রাখায় মানুষের বাসায় কাজ করে সংসার ও ছেলে-মেয়ের লেখাপড়ার খরচ জোগাতে হচ্ছে। এভাবে আর কয়দিন -? প্রশ্ন রেখে আলিমা বলেন, এখন শাহআলম আমার ফোন ধরে না-ই, উল্টো বিভিন্ন লোকদের দিয়ে চুপ থাকতে ও শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে দেয়া অভিযোগ তুলে নিতে হুমকি দিচ্ছে। আমি আপনাদের মাধ্যমে সুষ্ঠ বিচার চাই।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক শাহ আলম মোবাইলে জানান, আমি ঢাকায় অবস্থান করছি। রিপোট লেখার দরকার নাই। আমার সমস্য আমিই সমাধান করবো বলে ফোন কেটে দেন।

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ইলিয়াস আহমেদ বলেন, রগুনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহআলমের বিষয়টি পারিবারিক। তাই আমার করার কিছুই নাই।