বাউফলে আ’লীগ ও যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে সাইবার ট্রাইবুনালে মামলা, পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ

অতুল পাল: বাউফলে এক যুবলীগ কর্মী খুনের ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আক্রমনাত্বক, মিথ্যা, ভীতি প্রদর্শন এবং মান হানিকর ষ্ট্যাটাস দেয়ার অভিযোগ এনে বাউফল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলার কালাইয়া ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ঢাকার সাইবার ট্রাইবুনালে মামলা করেছেন পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক বাউফল পৌর সভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল। গত ৩১ আগস্ট ওই মামলা করা হয়। মামলা নম্বর ২১১, তারিখ ৩১ আগস্ট, ২০২০। আদালত মামলাটি তদন্ত করার জন্য পটুয়াখালীর পিবিআই কে দায়িত্ব দিয়েছেন। মামলার প্রেক্ষিতে বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে চরম অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে। আজ বৃহষ্পতিবার মামলার বিবরণ থেকে জানা গেছে, চলতি বছরের ২৪ মে দুপুরে পৌরসভার মেয়র সমর্থক কর্তৃক উপজেলা যুবলীগের নেতা তাপস দাস হত্যাকান্ডের পর উপজেলার কালাইয়া ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মামুন সোয়েব তার ফেস বুক আইডি দিয়ে রাত ৮ টা ১৮ মিনিটে “তাপসের হত্যাকারি মেয়র জুয়েলের ফাঁসি চাই, রক্তের বদলে রক্ত” শীর্ষক লেখা পোস্ট করেন। একই দিন রাত ৯ টা ২ মিনিটে বাউফল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইব্রাহিম ফারুক ওই পোস্টটি তার ফেস বুক আইডি থেকে শেয়ার করেন। ফেসবুকের ওই পোস্ট ও শেয়ার উস্কানিমূলক, স্থানীয় মানুষের মধ্যে শক্রতা, ঘৃণা, বিদ্বেষ, অস্থিরতা ও বিশৃংখলা সৃষ্টির সামিল। ওই পোস্ট ও শেয়ার বাদিকে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্যই করা হয়েছে। যাহা ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫, ২৯, ৩১ ও ৩৫ ধারার অপরাধ সংঘটিত করেছে। এবিষয়ে বাদি গত ২৫ আগস্ট বেলা সারে ১১ টার দিকে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করতে গেলে থানা কর্তৃপক্ষ আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। তবে এবিষয়ে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, উল্লেখিত তারিখে মামলা করার জন্য মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল থানায় আসেননি। এদিকে মামলা দায়েরের পর আদালত মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য পটুয়াখালীর পিবিআইকে দায়িত্ব দিয়েছেন। উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৪ মে বাউফল থানা সংলগ্ন ডাকবাংলোর মোরে ব্রিজের ঢালে একটি তোরণ নির্মাণকে কেন্দ্র করে বাউফল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইব্রাহিম ফারুকের সাথে বাউফল পৌর সভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলের তর্কাতর্কি শুরু হয় এবং উভয়ের সমর্থকদের মধ্যে মারামারি শুরু হয়। এক পর্যায়ে মেয়র সমর্থকরা চাকু দিয়ে কুপিয়ে এবং লাঠি দিয়ে পিটিয়ে উপজেলা যুবলীগের নেতা তাপস দাসকে গুরুতর জখম করে। তাৎক্ষণিক তাপসকে বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে সন্ধা সারে সাতটার দিকে তাপস মারা যায়। ওই ঘটনায় ২৫ মে বাউফল পৌর সভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলকে প্রধান আসামি করে ৩৫ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের হওয়া মামলা সম্পর্কে বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবদুল মোতালেব হাওলাদার জানান, বাউফল পৌর সভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল তাপস খুনের প্রধান আসামি। তাপসকে কোপানোর সময় সে ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল এবং তারই নির্দেশে তাপসকে খুন করা হয়েছে। তার উপস্থিতির প্রমান হিসেবে অনেক ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বাদি এবং আমাদের কাছে রয়েছে। আমিও খুনি মেয়রের ফাঁসি চাই এবং এই মর্মে আমি ২ সেপ্টেম্বরও পূনরায় ফেসবুকে ষ্ট্যাটাস দিয়েছি। মামলার দ্বিতীয় আসামি বাউফল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ইব্রাহিম ফারুক বলেন, তাপস হত্যাকান্ড থেকে নিজেকে রক্ষা এবং মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার অপচেষ্টা থেকেই এই মামলা করা হয়েছে। তিনি বলেন, তাপস হত্যার হুকুমদাতা হিসেবে মেয়র জুয়েলের ফাঁসি দাবি করে বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের শত শত নেতাকর্মী ও সাধারন মানুষ ফেসবুকে ষ্ট্যাটাস দিয়েছেন। আমি এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি করছি। মামলার প্রধান আসামি মামুন সোয়েব বলেন, দলের ভাইকে মেরে ফেলবে আর আমারা কিছু বলতে পারবো না এটা মেনে নেয়া যায়না। তিনি মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ মেয়র জুয়েলের ফাঁসি দাবি করেন।

Previous articleশার্শার বাগআঁচড়ার ইউপি চেয়ারম্যান বকুলের করোনা প্রতিরোধ শুর্ট আউট বিতরণ
Next articleউল্লাপাড়ায় আলোকিত প্রজন্ম গড়তে তানভীর ইমাম মুক্তিযোদ্ধা পাঠাগার স্থাপন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।