দুই মেয়র প্রার্থীর চাঁদপুর পৌর নির্বাচন বর্জন : সহিংসতায় যুবকের মৃত্যু

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ব্যাপক অনিয়ম, হামলা, মারধর এবং জোরপূর্বক কেন্দ্র দখলের অভিযোগে দুই মেয়র প্রার্থী চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন বর্জন করেছেন। শনিবার (১০অক্টোবর) সকাল ১১ টায় বিএনপির মনোনিত ধানের শীষের প্রার্থী আক্তার হোসেন মাঝি ও দুপুর আড়াইটায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখার প্রার্থী মামুনুর রশিদ বেলাল নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

চাঁদপুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের গনি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়ে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। নিহতের নাম ইয়াছিন (১৮)। দুপুর সোয়া ১২ টায় প্রতিপক্ষরা ইয়াসিনের শরীরের বিভিন্ন অংশে ও গলায় কুপিয়ে জখম করে। গুরুতর আহতাবস্থায় তাকে চাঁদপুর ২৫০শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ঢাকা রেফার করা হয়। ঢাকা নেওয়ার পথে পথিমধ্যে শহরতলীর বাবুরহাট এলাকায় অ্যাম্বুলেন্সে সে মারা যায়।

এসময় প্রতিপক্ষের হামলার শিকার হয়ে আরো প্রায় ১২জন আহত হয়ে বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নেয়।

ধানের শীষের প্রার্থী, চাঁদপুর শহর বিএনপির সভাপতি আকতার হোসেন মাঝি জানান,সকাল থেকেই বিভিন্ন কেন্দ্রে বিএনপি প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়। সরকার দলীয় কর্মীরা ভোট কেন্দ্র দখলে নিয়ে জোরপূর্বক গোপন কক্ষের ইভিএমের বাটন চেপে নৌকা প্রতীকে ভোট দেন। এছাড়া বেশ কয়টি ভোট কেন্দ্রে বিএনপি নেতাকর্মীদের মারধর ও কুপিয়ে জখম করে। গুরুতর কয়েকজনকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ।
এমতাবস্থায় বিএনপি নেতাকর্মী এবং পৌরবাসীর জানমাল রক্ষায় আমি নির্বাচন বর্জন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখার প্রার্থী মামুনুর রশিদ বেলাল প্রহসনের নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়ে বলেন, সকালে কিছু সময় শান্তিপূর্ণ ভোট হলেও ১০টার পর থেকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীর লোকজন আমাদের দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে করে কয়েকজন নিরীহ কর্মী আহত হয়।

এছাড়া ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটারদের টিপসই নিয়ে সরকার দলীয় লোকজন গোপন কক্ষে দাঁড়িয়ে থেকে নৌকা প্রতীকে ভোট দেন। আমরা এই প্রহসনের নির্বাচন বয়কট করলাম। এই সরকারের আমলে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন কখনোই আশা করা যায় না বলে তিনি অভিযোগ করেন।

এদিকে বেশকিছু ভোট কেন্দ্রে সাংবাদিকদের প্রবেশে বাধা দেয়া হয়। জেলা রিটার্নিং অফিসারের ইস্যুকৃত সাংবাদিক পর্যবেক্ষণ কার্ড থাকলেও উশৃংখল নেতাকর্মীরা সাংবাদিকদের ভোট কেন্দ্রে ডুকতে দেয়নি।

চাঁদপুর শহরের গনি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের প্রধান ফটক ঊশৃংখল নেতাকর্মীরা অবরুদ্ধ করে রাখে। বেলা সোয়া ১২টায় চাঁদপুর প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলনসহ একদল সাংবাদিক পর্যবেক্ষণে গেলে তাদেরকে ভোট কেন্দ্রে ডুকতে বাধা দেওয়া হয়। তাদের সোজাসাপ্টা বক্তব্য ‘সাংবাদিক নট অ্যালাউ’।

জেলা রিটার্নিং অফিসার তোফায়েল আহমেদ বলেন, এমনটি হওয়ার কথা নয় । পর্যবেক্ষণ কার্ড থাকলে অবশ্যই ভোট কেন্দ্র প্রবেশের সুযোগ থাকবে। বিষয়টি আমি দেখছি।

নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী মো. জিল্লুর রহমান (নৌকা), বিএনপির দলীয় প্রার্থী মো. আক্তার হোসেন মাঝি (ধানের শীষ) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মামুনুর রশিদ বেলাল (হাতপাখা) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এছাড়া কাউন্সিলর পদে ৫০জন এবং মহিলা কাউন্সিলর পদে আরো ১৪জনসহ মোট ৬৭জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নেন।