উল্লাপাড়ায় এখন পায়ে হেঁটে চলতেই গ্রামবাসীদের উদ্যোগে বাঁশের মাচা

সাহারুল হক সাচ্চু: এক সময় বলতে গত মাস সাতেক আগেও নদীর পাড় বেয়ে চওড়া সড়ক পথ ছিল। তবে তা ছিল না সরকারি সড়ক পথ। প্রায় এক হাজার ফুট এ সড়ক পথ বেয়ে পায়ে হেঁটে কিংবা হালকা বিভিন্ন বাহন নিয়ে গ্রামবাসীদের চলাচল ছিল। এখন সে পথে প্রায় একশ ফুট অংশে পায়ে হেঁটে চলতেই এক ধরনের দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সেখানে পায়ে হেঁটে চলতে গ্রামবাসীরাই বাঁশের মাচা (স্যাকো) ফেলে চলাচল করেছে। এ চিত্র সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার পারতেতুলিয়া গ্রামে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা ও জানা গেছে, সদর উল্লাপাড়া ইউনিয়নের পারতেতুলিয়া খেয়া ঘাট থেকে কচুয়া নদী পাড় বেয়ে আলম সরকারের দোকান পর্যন্ত দূরত্ব প্রায় এক হাজার ফুট। অতীতে সড়ক পথ বলে পরিচিত নদী পাড়ের এ অংশটুকু বেশ চওড়া ছিল বলে জানানো হয়। গ্রামবাসীরাই জানায়, এটি সরকারি কোন সড়ক পথ নয়। এখানকার বসতি পরিবার গুলো বহু বছর আগে থেকেই নদী পাড়ে তাদের নিজেদের ছেড়ে দেওয়া জায়গা সড়ক পথ হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। এ পথে পারতেতুলিয়া গ্রামবাসীরা ছাড়াও ভেল্লাবাড়ি গ্রামের বেশির ভাগ জনগন উল্লাপাড়া শহওে আসা যাওয়া করে। পারতেতুলিয়া খেয়া ঘাটে কচুয়া নদীর উপর জাতীয় সংসদ সদস্য তানভীর ইমামের একান্ত উদ্যোগে স্থানীয় এলজিইডি থেকে প্রায় সাড়ে চার কোটি টাকা ব্যয়ে একটি ব্রীজ নির্মানের কাজ চলছে। উপজেলা সদরের সাথে পারতেতুলিয়া হয়ে ভেল্লাবাড়ি সহ আরো কয়েকটি গ্রামের সড়ক পথে সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে ব্রীজটি নির্মান হচ্ছে। গত মাস সাতেক আগে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) থেকে কচুয়া (বিলসুর্য্য) নদী পুনঃখনন কালে পারতেতুলিয়া নদী পাড়ে সড়ক পথ বলে চিহ্নিত বেশ কিছু অংশ ধ্বসে গেছে বলে জানা যায়। সেখানে গিয়ে দেখা গেছে, গ্রামের নবীরুল ইসলামের বাড়ির বসতঘর ঘেষে প্রায় ৫০ ফুট লম্বা বাঁশের মাচা ফেলা হয়েছে। এছাড়া আরো একাধিক জায়গায় দু’থেকে আড়াই ফুট চওড়া পথ রয়েছে। এ পথটুকুর বর্তমান দশায় এখন আর হালকা যানবাহন নিয়ে চলাচল করা যায় না। গ্রামবাসীরাই পায়ে হেঁটে চলতে নিজেরাই উদ্যোগ নিয়ে বাঁশের মাচাটি নির্মান করেছে। উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ মাঈন উদ্দিন বলেন, বৃহত্তর পাবনা ও বগুড়া জেলার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পে পারতেতুলিয়ায় ৯০ মিটার দীর্ঘ একটি ব্রীজ নির্মান কাজ চলছে। এতে ৪ কোটি ৪১ লক্ষ ৬ হাজার ৬শ ৭ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। আগামী বছরের জুন মাস নাগাদ ব্রীজটির নির্মান কাজ শেষ হবে বলে তিনি আশার কথা জানিয়ে আরো বলেন, এর নির্মান শেষ হলে উপজেলা সদরের সাথে পারতেতুলিয়া সহ পাশ্ববর্তী গ্রাম গুলোর সড়ক পথের সহজ ও দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। পারতেতুলিয়ায় নদী পাড় হয়ে প্রয়োজনীয় অংশে সড়ক নির্মান পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন করা হবে।