রায়পুরে বাক-শ্রবন প্রতিবন্ধি নববধূকে ধর্ষণের চেষ্টা, ঘটক কারাগারে

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে শ্রবন ও বাক প্রতিবন্ধি এক গনবধুকে (২২) জোর পূর্বক ধর্ষনের চেষ্টা করেছে মোঃ বোরহান (৬৫) নামের এক লম্পট ঘটক। এ ঘটনায় সোমবার (১২ অক্টোবর)-সকালে গৃহবধু বাদী হয়ে অভিযুক্ত বৃদ্ধ ঘটক বোরহান মিয়াকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। দুপুরে পুলিশ ওই গৃহবধুকে হাসপাতালে মেডিকেল করে আদালতে ও লম্পট বোরহানকেও লক্ষ্মীপুর বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলা পাঠিয়েছেন।

মামলা ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১৫ দিন আগে সদর উপজেলার দালালবাজার ইউপির নন্দনপুর গ্রামের দিনমজুরের মেয়ে বাক ও শ্রবন প্রতিবন্ধি মেয়েকে লম্পট বোরহান তার প্রতিবন্ধি চাচাত ভাইকে দ্বিতীয়-বিয়ে করান। মামলার আসামী ও গৃহবধুর স্বামীর বাড়ী পাশাপাশি। গৃহবধুর প্রতিবন্ধি স্বামী দিনমজুরী করে জীবিকা নির্বাহ করেন। তাই সে স্বামীর আগের দুই কন্যাকে নিয়ে স্বামীর বাড়ীতে একা থাকেন। এই সুযোগে আসামী বোরহান বাড়ীতে এসে বিভিন্ন কু-প্রস্তাব দিতে থাকে। গৃহবধু তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় জোর পূর্বক ইজ্জত নষ্ট করার হুমকি দেয়। পরবর্তীতে গৃহবধু ঘটনাটি স্বামীকে জানালে স্বামী আসামীর পিতা ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের নিকট অভিযোগ করে। আসামীর নীজে এলাকার প্রভাবশালি লোক হওয়ায় কেউ বিচার সালিশ করার সাহস পায় না।

বৃহস্পতিবার-(৯ অক্টোবর) সন্ধায়-গৃহবধু তার ঘরে মাগরিব নামাজ পড়ে নীজের কক্ষে শুয়েছিলেন। এসময় কৌশলে ঘরে ঢুকে আসামী বোরহান হাত ও বাহু ধরে টেনে, পাজা করে কোলে নিয়ে দরজা বন্ধ করে জোর পূর্বক ধর্ষনের চেষ্টা করে। অভিযুক্ত বোরহানের সাথে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে গৃহবধুর ডাক চিৎকারে চারদিক থেকে লোকজন জড়ো হতে থাকলে বোরহান পালিয়ে যায়। পরের দিন শুক্রবার (১০ অক্টোবর) রাতে এঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্যের ভাই যুবলীগ নেতা রিয়াজসহ প্রায় ৫০/৬০ ব্যাক্তির উপস্থিতিতে সালিশ বৈঠক হয়। এতে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে মারধরের বিচার করা হয়। এসময় বৈঠকে ওই নববধুর স্বামীকে ৫ হাজার টাকা দিয়ে মিমাংসা করা হয়।

এঘটনা নিয়ে পুলিশকে জানানো বা বাড়াবাড়ি হবে না বলে বোরহানের কাছ থেকে দুই দফায় ৮২ হাজার টাকা আদায় করেন স্থানীয় দালালচক্র। পরে ঘটনাটি অসন্তোষ্ট হয়ে রোববার (১১ অক্টোবর) রাতে নববধুর অভিভাবক পুলিশকে জানালে অভিযান চালিয়ে শহরের টিএন্ডটি সড়কের একটি চা দোকান থেকে লম্পট বোরহানকে আটক ও ক্ষতিগ্রস্থ নববধুকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এঘটনায় সকল স্বাক্ষী, প্রমান ও নববধুর জবানবন্ধির ভিত্তিতে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা রেকর্ড করে সোমবার দুপুরে উভয়কে লক্ষ্মীপুর আদালতে পাঠানো হয়। পরে আদালত অভিযুক্ত বোরহানকে কারাগারে পাঠান।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত বোরহান বলেন, আমি নির্দোশ। এলাকার এক সাংবাদিকসহ দালালরা আমার কাছ থেকে দুই দফায় ৭৫ হাজার ও অন্য সাংবাদিকদের নামে ৮ হাজার টাকা নিয়ে আমাকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়। আল্লাহ বিচার করবেন। এঘটনার সাথে জড়িত ইউপি সদস্যের ভাই রিয়াজ বলেন, নববধুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে কোন বৈঠক হয়নি। চরথাপ্পরের বিচার হয়েছে। বোরহানের কাছ থেকে জরিমানার ৫ হাজার টাকা ছাড়া অন্য কোন টাকা আদায় হয়নি।

রায়পুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল জলিল জানান, ক্ষতিগ্রস্থ বাক ও শ্রবন প্রতিবন্ধি নববধু সকল বক্তব্য এএসপি সার্কেল স্পীনা রানী প্রামানিক নিয়েছেন। মেয়েটির বিয়ের ঘটক জেঠাতো ভাশুর বোরহানকে আসামী করে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা করেছেন। মামলাটি তদন্ত সাপেক্ষে আদালতে প্রতিবেদন দেয়া হবে।