কম্পোষ্ট সার তৈরী করে নিভৃত পল্লীর কুলসুম আক্তারের“ জননেত্রী শেখ হাসিনা সম্মাননা পদক ২০০০” লাভ

জয়নাল আবেদীন: জীবন সংগ্রামে সফল রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার নিভৃত এক পল্লীর সম্ভাবনাময় এক মেধাবী ছাত্রী কুলসুম আক্তার। লেখাপড়ার পাশাপাশী বাবার সহযোগীতায় নিজ বাড়ীতে ভার্মি কম্পোষ্ট (কেঁচো) সার তৈরীতে বিশেষ অবদান রেখেই চলছেন । তার কর্মের স্বীকৃত হিসেবে অর্জন করেছেন “ জননেত্রী শেখ হাসিনা সম্মাননা পদক ২০০০” । গত ৩ অক্টোবর ঢাকার জাতীয প্রেসক্লাবের ভিআইপি হলরুমে বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদ এবং বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা কৃষিবিদ পরিষদের যৌথ উদ্যোগে, “পুষ্টি সম্মত ও নিরাপদ খাদ্যের নিশ্চয়তা প্রদানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার, দেশের সকল অনাবাদি জমিতে করতে হবে ফসল চাষাবাদ” শীর্ষক আলোচনা সভা এবং দেশের বিশিষ্ট জনদের “জননেত্রী শেখ হাসিনা সন্মননা পদক- ২০২০ প্রদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন পেশায় অবদান রাখায় দেশের ১৭ জন ব্যাক্তিকে “ জননেত্রী শেখ হাসিনা সন্মাননা পদক-২০২০” প্রদান করা । আর এই অনুষ্ঠানে মাটির স্বাস্থ্য রক্ষায ভার্মি কম্পোষ্টে বিশেষ অবদান রাখায় অন্যান্যদের সঙ্গে এ পদক প্রাপ্ত হয়েছেন পীরগঞ্জের সফল উদ্যেক্তা কুলসুম আক্তার । খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মুজমদার এমপি’র নিকট থেকে কুলসুম আক্তার এ সন্মননা পদক গ্রহন করেন।এ সাফল্যের ব্যাপারে কুলসুম আক্তার গণমাধ্যমকে বলেছেন পীরগঞ্জের চতরা ইউনিয়নের সখীপুর গ্রামের রবিউল আলমের মেয়ে কুলসুম আক্তার । বর্তমানে রংপুর কারমাইকেল কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্রী । কুলসুম আক্তার ছাড়াও তাঁর আরো রয়েছে ৪ বোন । বছর দশেক আগের কথা । কুলসুমের পিতা রবিউল আলম অন্যের জমিতে কাজ করে কোনো রকমে সংসার চালাতো । অভাবের কারনে ২০০৯ সালে সপ্তম শ্রেণীতে লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায় কুলসুমের । বাধ্য হয়ে সে ওই বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে গ্রামের এক বাড়িতে ঝিয়ের কাজ শুরু করে । বিষয়টি জানতে পেরে চতরা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইদুজ্জামান কুলসুমের বাড়িতে যান। বাবা- মাকে বুঝিয়ে কুলসুমকে ডেকে নেন। পরামর্শ দেন, স্থানীয় একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার (এনজিও) অধীনে বিষ মুক্ত সবজি চাষ ও কেঁচো সার তৈরির কৌশল শিখে নেওয়ার। পরে একটি বেসরকারি সংস্থায় প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজ শুরু করে কুলসুম। বাড়ির এক পাশে চালা তুলে সেখানে সিমেন্টের চারটি রিং স্থাপন করেন। সকাল-বিকাল মাঠে ঘুরে তাজা গোবর সংগ্রহ করে রিং গুলো ভরিয়ে তোলার পর ওই সংস্থার কাছ থেকে ৬শটি বিশেষ প্রজাতির কেঁচো এনে রিংয়ের ভেতর ছেড়ে দেন। এতে ৩ মাসে চারটি

রিং থেকে প্রায় ২শ কেজি কেঁচো সার পাওয়া যায়। একই সঙ্গে ৬শটি কেঁচোর বাচ্চাও প্রাপ্ত হন। প্রথম পর্যায়ে কুলসুম ১৫ টাকা কেজি দরে ৩ হাজার টাকার সার বিক্রি করেন । কেঁচো বিক্রি করে পান ৬শ টাকা। এ আয় কুলসুমের চোখ খুলে দেয়। পরে ইট দিয়ে পাকা গর্ত নির্মাণ করে কেঁচো সার তৈরি শুরু করেন। মেয়ের সঙ্গে শ্রম দেয় বাবাও ।বিগত ২০০৯ সালে সার ও কেঁচো বিক্রি করে সব মিলিয়ে মোট ২৩ হাজার টাকা জমা করেন। এ টাকা দিয়ে অন্যের ৮০ শতক জমি বর্গা নিয়ে কেঁচো সার দিয়ে শসা, লাউ, শিম, করলা চাষ করেন। এ ফসল বিক্রি করে আয় হয় ৭০ হাজার টাকা। এ ভাবে আয় বাড়ে, চাষের জমি বাড়ে। সার, কেঁচো ও সবজি বিক্রির টাকায় কেনেন ২৬ শতক জমি। নির্মান করেন টিনের বাড়ী । কুলসুমার সংসারে এখন প্রতিমাসে আয় নুন্যতম ৩০ হাজার টাকা । কেঁচো সার বিক্রির টাকা দিয়ে ৩ বোনকে বিযেও দিয়েছেন । কুলসুম সহ দু’বোন লেখাপড়া করছেন । তাদের সংসারে এসেছে সচ্ছলতা। কুলসুমা নিজ উদ্যেগে সার্বক্ষণিক সফলতার স্বপ্ন দেখছেন এবং সে লক্ষেই এগিয়ে চলছেন ।এ পদক প্রাপ্তির ব্যাপারে কুলসুম তার প্রতিক্রিয়ায় আনন্দ প্রকাশ করে জানায়, আগে সমাজে কোনো পরিচয় ছিল না। অর্থ সংকটের কারণে লেখাপড়াও করতে পারছিলাম না। এ কেঁচো সার তাকে পরিচয় করে দিচ্ছে এবং পড়াশোনা চালিয়ে এত দূর এসেছি । আমার ইচ্ছা পীরগঞ্জের পাশাপাশি সারা দেশে কেঁচো সার ছড়িয়ে দেওয়ার ।