পীরগাছায় পোকা শনাক্ত করতে আলোর ফাঁদ

ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছা উপজেলায় কৃষি অধিদপ্তরের সহযোগিতায় চলতি রোপা আমন মৌসুমে ধানের ক্ষেতে পোকা দমনে আলোর ফাঁদ ও লাইফ পাচিং ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মাঠ পর্যায়ের কৃষকদের উদ্ধুদ্ধকরণ ছাড়াও আলোক ফাঁদের জন্য বিনামূল্যে চার্জার বাল্ব এবং লাইফ পাচিংয়ের জন্য ধৈঞ্চার চারা কৃষকদের মাঝে সরবরাহ করা হয়। আলোক ফাঁদের ফলে ধান ক্ষেতে ক্ষতিকর বা উপকারি পোকা সনাক্ত করা যায় আর পার্চিং এর উপর পাখি বসে ধান ক্ষেতে পাখি পোকা মাকড় খেয়ে ফেলে। এতে কীটনাশক ছিটানো ছাড়াই অতি সহজে ধান ক্ষেতের পোকা দমন করা যায় বলে কৃষকরা জানান। সরজমনি উপজেলার ছাওলা ইউনিয়নের গাবুড়া, কিশামত ছাওলা, তাম্বুলপুর ইউনিয়নের চররহমত, পশ্চিমদেবু, নটাবাড়ি সহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, রোপা আমন ধান চাষের শুরুতেই উপজেলা কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে প্রতিটি ইউনিয়নের বিনামূল্যে ধৈঞ্চার চারা সরবরাহ করেন। ধানের চারা রোপনের সাথে এই ধৈঞ্চার চারাও রোপন করা হয়। ফলে ধান গাছের সাথে সাথে ধৈঞ্চার গাছেও বড় হতে থাকে। কৃষকরা জানান ক্ষেতের মাঝে এসব গাছে পাখি বসে পোকা দমন করে। সেই সাথে এসব গাছ নাইট্রোজেনেরও কাজ করে। উপজেলা সদর থেকে একটু বের হলেই রাস্তার দুই ধারে তাকালে সবুজ ক্ষেতের মাঝে দেখা যায় এসব ধৈঞ্চার গাছ। এছাড়া অনেক ক্ষেতে বাঁশের কঞ্চির পার্চিং যাকে বলে ডের্থ পার্চিং। আর সন্ধ্যার পর দেখা যায় উপজেলা কৃষি সহযোগিতায় বাল্ব দিয়ে চলছে আলোর ফাঁদ। যা দিয়ে ক্ষেতের উপকারি এবং ক্ষতিকর পোকা সনাক্তের কাজ করে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অফিসার লোকমান আলম জানান, চলতি রোপা আমন মৌসুমে উপজেলায় ২০হাজার ৫শ ৬০হেক্টর জমিতে রোপা আমনের চাষ হয়েছে। তিনি বলেন, ধান ক্ষেতে আলোক ফাঁদ এবং পার্চিং বিষয়ে কৃষকদেরকে উদ্ধুদ্ধকরণ করা হয়। পাশাপাশি পোকা দমনে পার্চিংয়ের জন্য কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে ধৈঞ্চের বীজ এবং বাঁশের কঞ্চি সরবরাহ করা হয়। এছাড়াও ক্ষতিকর পোকা সনাক্তের জন্য সন্ধ্যার পর আলোক ফাঁদের ব্যবস্থা করা হয়েছে।