শাহজাদপুরে আটক ৪ জঙ্গিকে থানায় হস্তান্তর : ছাত্র পরিচয় দিয়ে বাড়ী ভাড়া নিয়েছিল জঙ্গিরা

বিমল কুন্ডু: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে জঙ্গি আস্তানা থেকে আটক ৪ জেএমবি’র সদস্যকে আজ শনিবার বিকেলে থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে র‌্যাব বাদী হয়ে আটক জেএমবি’র আঞ্চলিক সেকেন্ড ইন কমান্ড কিরণ ওরফে শামিম ওরফে হামিম, নাঈমুল ইসলাম, আতিয়ার রহমান ওরফে কলম সৈনিক ও আমিনুল ইসলাম শান্তকে আসামী করে ৩ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আটককৃতদের একই দিন সন্ধ্যায় কড়া প্রহরায় সিরাজগঞ্জ জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এদিকে আটক জঙ্গিদের ২ জন প্রকৃত নাম গোপন করে সেলিম ও নাঈম নাম ধারণ করে পাবনা জেলার বেড়া উপজেলার আল-হেরা স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্র পরিচয় দিয়ে ওই বাড়ী ভাড় নেয় বলে জানা গেছে। আজ শনিবার সকালে পৌর এলাকার ১ নং ওয়ার্ডের শেরখালী উকিলপাড়া ঘুরে জানা গেছে, জঙ্গি আস্তানা গড়ে ওঠা ওই বাড়ীর প্রকৃত মালিক শামসুল হক রাজা। উপ-সহকারি প্রকৌশলী শামসুল হক রাজা চাকরী সূত্রে বগুড়ায় বসবাস করেন। তার ভায়রা ভাই একই ওয়ার্ডের দাবারিয়া মহল্লার বাসিন্দা আব্দুল্লাহ-আল-মামুন ওই বাড়ীর দেখাশোনা করে থাকেন। আব্দুল্লাহ-আল-মামুন জানান, চলতি মাসের ২ তারিখে পাবনা জেলার সাঁথিয়া উপজেলার খালেকুজ্জামান নামে অবসরপ্রাপ্ত এক শিক্ষক নাঈম ও সেলিমকে নিয়ে বাড়ী ভাড়ার জন্য তার কাছে আসেন। তিনি নাঈমকে ছেলে ও সেলিমকে তার ভাতিজা পরিচয় দিয়ে তার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি জমা দিয়ে মাসিক ২ হাজার টাকায় বাড়ীটি ভাড়া নেয়। এ প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, অভিভাবক পরিচয় দানকারী ওই শিক্ষকের জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি র‌্যাবের কর্মকর্তারা নিয়ে গেছেন। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, উপজেলার বনগ্রাম গ্রামের হাবিবুর রহমান তার মেয়ে-জামাইয়ের বাড়ীটি ভাড়া নেয়। ওই দম্পত্তি ২ মাস থাকার পর চলে যায়। জঙ্গি আস্তানা গড়ে ওঠা বাড়ীটির ১‘শ গজের মধ্যে ফজলুল করিম কিরাতুল কোরআন হাফিজিয়া মাদরাসা ও বাইতুস শরিফ জামে মসজিদ রয়েছে। ওই মাদরাসার সুপার ও মসজিদের ঈমাম হাফেজ আশরাফ আলী জানান, তিনি কখনোই ওই জঙ্গিদের রাস্তা-ঘাটে চলাফেরা বা মসজিদে নামাজ পরতে দেখেন নি। এদিকে, জঙ্গি আস্তানার ওই বাড়ীর অদূরের এক ভবনের মালিক নাঈম হোসেন জানান, এলাকায় জঙ্গিদের আস্তানা গড়ে ওঠার ব্যাপারে তিনিও কিছু জানেন না। অপরদিকে, শেরখালী উকিলপাড়ার বাসিন্দা সিরাজগঞ্জ জজ কোর্টের আইনজীবি এ্যাডভোকেট আব্দুল খালেক জানান, জঙ্গি আস্তানা কাদের ছত্রছায়ায় গড়ে উঠেছে তা সঠিক তদন্তের মাধ্যমে খুঁজে বের করে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান। এদিকে থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিদ মাহমুদ খান জানান, র‌্যাব বাদী হয়ে আটক জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস বিরোধী, অস্ত্র আইন ও বিষ্ফোরক আইনে ৩ টি মামলা দায়ের করেছেন। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে সিরাজগঞ্জ জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে, জঙ্গিদের আটক করা হলেও শোরখালী উকিলপাড়ার বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক কাটেনি। এলাকার রাস্তা দিয়ে যানবাহন ও লোক চলাচল নেই বললেই চলে।