পাবনায় ‘কোভিড-১৯ প্রেক্ষাপটে প্রতিবন্ধী নারীদের অবস্থা’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও খাদ্য সহায়তা প্রদান

কামাল সিদ্দিকী: প্রতিবন্ধী নারীরা পুরুষের তুলনায় করোনা পরিস্থিতিতে মানবেতন জীবন যাপন করছে। প্রতিবন্ধী নারী অন্যদের চেয়ে দারিদ্র্র সীমার নিচে বসবাস করেন। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে দেশের অনেক নাগরিকের মতো আয়মূলক কর্মে নিযুক্ত প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরাও কর্মহীন হওয়াসহ স্বাস্থ্য, শিক্ষা, চিকিৎসা সেবা এবং জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতার মুখোমুখি হয়েছেন। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে ইচ্ছা করলেই প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা কর্মে যুক্ত হতে পারছেনা, প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেনা এবং সহিংসতার কারণে সৃষ্ট সমস্যার সমাধান কিভাবে করতে হবে উঠা কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে। প্রতিবন্ধী নারী-পুরুষ উভয়েই আজ ব্যক্তিদের ঝুঁকির মধ্যে বসবসা করছে। কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হলে জটিল স্বাস্থ্যঝুঁকিই শুধু নয় মৃত্যুর মুখোমুখি হতে পারেন। শনিবার কাভিড-১৯ প্রেক্ষাপট ও প্রতিবন্ধী নারীর অবস্থা শীর্ষক এক আলোচনা সভায় অতিথিসহ অংশ গ্রহনকারীরা এমন মতামত ব্যক্ত করেছেন। উইমেন উইথ ডিজএ্যাবিলেটিস ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (ডাব্লউডিডএফ) দেশব্যাপী হতদরিদ্র প্রতিবন্ধী ব্যক্তি বিশেষ করে প্রতিবন্ধী নারী যারা বিভিন্ন প্রতিকুল অবস্থার মধ্য রয়েছেন তাদের নিয়ে আলোচনা সভার মাধ্যমে কোভিড-১৯ সময়ে প্রতিবন্ধী নারীদের পরিস্থিতি বোঝার চেষ্টা করছেন। এই কার্যক্রমের অংশ হিসেবে শনিবার প্রতীক মহিলা ও শিশু সংস্থার আয়োজনে কোভিড-১৯ প্রেক্ষাপট ও প্রতিবন্ধী নারীর অবস্থা শীর্ষক এক আলোচনা সভা শহরের আক্তারুজ্জামান টাওয়ার এর মিডিয়া সেন্টারে আয়োজন করা হয়। লাইট ফর দ্যা ওয়ার্ল্ড এবং সেন্টার ফর ডিজএ্যাবিলিটি ইন ডেভেলপমেন্ট (সিডিডি) এর সহায়তায় এবং ডিএফআইডি এর অর্থায়নে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাবনা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রাশেদুল কবীর, রিসোস পারসন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের সাবেক পার্ট পিপি এ্যাড. বিথিকা খন্দকার এবং পাবনা জজ কোটের এডিশনাল জিপি এ্যাড. আরেফা খানম শেফালী। সভায় সভাপতিত্ব করেন আয়োজক সংস্থার নির্বাহী পরিচালক এস এম সাইফুর রহমান। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয়পর্বে সর্বজন শ্রদ্ধেয় বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ পাবনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি প্রফেসর শিবজিত নাগ ও সাবেক সাধারন সম্পাদক আঁখিনুর ইসলাম রেমনসহ অতিথিবৃন্দ প্রতিবন্ধী নারীদের উপহার হিসেবে খাদ্য সামগ্রী তাদের হাতে তুলে দেন। প্রধান অতিথি বলেন কোভিড-১৯ চলাকালে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি বিশেষ করে প্রতিবন্ধী নারীর প্রতি আমাদের দায়িত্ব বেশী। আমরা সমাজসেবার সকল সেবা প্রতিবন্ধী নারীদেরকে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রদান করছি এবং সরকারের সকল প্রতিষ্ঠানকে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদেরকে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সেবা প্রদানের জন্য বলা হয়েছে। এ্যাড. বিথিকা খন্দকার বলেন, দৈনিক ২৫ টাকা হারে মাসে ৭৫০ টাকা ভাতা দিয়ে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের দৈনন্দিন চাহিদা মেটানো সম্ভব নয়। তাই কোডিভ চলাকালে তাদের জন্য বিশেষ সহযোগিতা একান্ত প্রয়োজন। এ্যাড. আরেফা খানম শেফালী বলেন, প্রতিবন্ধী নারীদের নির্যাতন থেকে মুক্তি পেতে হলে আর্থিক ভাবে স্বচ্ছল হতে হবে। সভায় আমন্ত্রিত অতিথির মধ্যে বক্তব্য রাখেন ব্র্যাক সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসূুচি মেজনিনের সেক্টর স্পেশালিষ্ট হাসিনা আখতার ও ব্র্যাকের ট্রেনিং ফ্যাসিলিলেটর সাবিনা ইয়াসমিন। অন্যান্য‘র মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাচঁতে চাই’র সমন্বয়কারী মোঃ লুৎফর রহমান, নারী শিল্প উদ্যোক্তা অনুজা সাহা এ্যানি এবং প্রতিবন্ধী নারী সায়মা ইসলাম কথা, শিউলী খাতুন, ফাইমা খাতুন, নুরুন্নাহার, আকলিমা খাতুন, ফাইমা বেগম প্রমুখ। ডাব্লউডিডএফ এর নির্বাহী পরিচালক আশরাফুন নাহার মিষ্টি অন লাইনে সভায় যোগদান করেন এবং মূল ধারণপত্র উপস্থাপন করে বলেন পরিবারের মধ্যেও প্রতিবন্ধী নারীদের বৈষম্যের মুখোমুখি হতে হয়। নারীর প্রতি সহিংসতা কমানোর জন্য পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০, যৌন হয়রানি প্রতিরোধে হাই কোর্টের রুল, ভ্রাম্যমান আদালত, ২০০৯, নারী নির্যাতন নিরোধ আইন, বাল্য বিবাহ রোধ আইন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০১০, নাগরিকত্ব আইন (সংশোধিত), ২০০৯, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে আইনগত সহায়তা

ও পরামর্শ প্রদানের জন্য নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেল, নির্যাতিত নারীদের জন্য পুনর্বাসন কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এর সবকটিই প্রতিবন্ধী নারীদের প্রতি সহিংসতা কমানোর জন্য প্রয়োগের সুযোগ থাকলেও তা যথাযথভাবে প্রয়োগ হচ্ছেনা। প্রতিবন্ধী নারীরা স্বাস্থ্য ঝুকিসহ অনাহার-অর্ধাহারে মানবেতর জীবণ যাপন করছে। উন্নয়ন কর্মি সাংবাদিক কামাল সিদ্দীকের সঞ্চালনায় সভায় তৃণমূল পর্যায়ের প্রতিবন্ধী নারী, ব্যক্তি, তাদের অভিভাবকসহ সুশিল সমাজের প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন।