বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুন্সিগঞ্জ সদর ও সিরাজদিখান উপজেলার পৃথক স্থান থেকে দুই নারী ও দুই পুরুষের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার (২৫ নভেম্বর) দুপুরে সদরের বাগমামুদালীপাড়ার একটি ভাড়া বাসা থেকে দীপ্র মজুমদার (২৮) ও মিতু সরকার (২৬) নামে দুজনের মরদহে উদ্ধার করা হয়।
নিহত দীপ্র কুমিল্লা সদর দক্ষিণের মান্নান মজুমদারের ছেলে আর মিতু মুন্সিগঞ্জের ফুলতলার নমকান্দি গ্রামের বলরাম সরকারের মেয়ে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান জানান, খবর পেয়ে বাগমামুদালীপাড়ার একটি তিনতলা ভবনের নিচতলার ভাড়া বাসা থেকে মিতু ও দীপ্রর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। বিস্তারিত খতিয়ে দেখার জন্য জন্য ঢাকা থেকে সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে।

মিতুর মায়ের বরাত দিয়ে ওসি জানান, মিতুর মা সকালে মিতুর ভাড়া বাসায় গিয়ে দীপ্রকে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় দেখে নিচে নামিয়েছেন। এ সময় জানালার সঙ্গে গলায় কাপড় বাঁধা অবস্থায় মিতুর লাশও দেখতে পান তিনি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদরে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মিতুর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মিতু ও দীপ্র দুজনই বিবাহিত। কিন্তু তাদরে মধ্যে পরকীয়ার একটা সম্পর্ক ছিল। দীপ্র কয়কে দিন আগে মিতুর ভাড়া বাসায় আসেন।
এছাড়া সিরাজদিখান উপজেলার একটি খাল থেকে অজ্ঞাতপরিচয়ের এক নারীর (২৫) গলাকাটা ও অপর ঘটনায় ওহাব সরকার (৭৫) নামে এক বৃদ্ধর লাশ উদ্ধার করা হয়।

সিরাজদিখান থানার ওসি রিজাউল হক দীপু জানান, স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে উপজেলার লতব্দি খাল থেকে আনুমানকি ২৫ বছর বয়সী অজ্ঞাতনামা এক নারীর গলাকাটা মরদহে উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে একটি ছুরিও উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, উপজেলার চিত্রকোট ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামে পারিবারিক কলহের জের ধরে ওহাব সরকারকে তার ছেলে লিয়াকত সরকার (৫০) হত্যা করেছনে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে ছেলে পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেফতার করার চেষ্টা চলছে।