তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে (২৬ নভেম্বর) দু’টি বাড়িতে সিঁধেল চুরির ঘটনা ঘটেছে। এসময় নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকারসহ প্রায় ২ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। উপজেলার চরআবাবিল ইউপির জাউডুগি গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। গত ৫ মাস আগে একটি সামাজিক ক্লাব, একটি জামে মসজিদের বাক্স ও চারটি বাড়ী চোরের দল হানা দিয়ে প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। কিন্তু আজও চোরাইকৃত মাল উদ্ধার ও চোর আটক হয়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ক্যাম্পের হাট সংলগ্ন সানাউল্লাহ বেপারি বাড়ির দুটি ঘরে চুরি হয়। এসময় স্বর্ণের চেইন, দুটি মোবাইল ও নগদ ৫০ হাজার টাকাসহ দুই লাখ টাকার মামলামাল নিয়ে যায়। এছাড়াও চলতি নভেম্বর মাসে একই এলাকায় চারটিরও বেশি চুরি হয়েছে । চোরের আতংকে এলাকাবাসীকে উদ্বিগ্ন থাকতে হচ্ছে। বেশিরভাগ পরিবারই চোরাই মালামাল উদ্ধারে পুলিমি-ঝামেলা মনে করে কোনো অভিযোগ করছেন না বলে জনপ্রতিনিধিরা জানান। তবে ধারণা করা হচ্ছে এসব চুরির সাথে নেশাগ্রস্থ স্থানীয় যুবকরা জড়িত। হিন্দু অধ্যুষিত ক্যাম্পেরহাট এলাকায় মাদক দ্রব্য সেবনকারি ও বিক্রয়কারি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

হায়দরগঞ্জ উপশহরের বিশিষ্ট সমাজ সেবক তাহসিন হাওলাদার বলেন, সিঁধেল চুরি আর পুকুর চুরি ! যে চুরিই হোক ! নিরাপদে সারতে পারাটাও পাণ্ডিত্য ! হোক না চুরিতে! পুকুর চুরি অর্থাৎ বড় ধরনের চুরি, এই যেমন রাষ্ট্রিয় কোটি টাকা পাচার কিংবা লাখ টাকা ঘুষ বাবদ গ্রহণ করলে তিনি মিডিয়ার হিরো (খলনায়কও বটে) হয়ে যান। সিঁধেল চোর অর্থাৎ ছোট চোরদেরই যতো দুঃখ ! এদের খোঁজ নেয় না কেউ। সাধারণ জনগণ দু’য়েকটি চড়-থাপ্পড় দিয়ে বিদায় করে দেয়। ভাগ্য খারাপ হলে হয়তো কিছুটা বেশি শাস্তি পেতে হয় ! ইউপি সদস্য ও গ্রামপুলিশরা তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করলে সিঁধেল চুরি রোধ সম্ভব বলে মনে করছি।

রায়পুর থানার অফিসা ইনচার্জ আবদুল জলিল বলেন, ‘এ ব্যাপারে কেউ আমাদের জানায়নি। তবে মহামারী করোনা ভাইরাস জনিত এ পরিস্থিতিতে পুলিশের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসীকেউ সজাগ থাকতে হবে।’