বাংলাদেশ প্রতিবেদক: খুলনার পাইকগাছায় লস্কর-পাইকগাছা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসার সুপারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ধর্ষণের মামলা হয়েছে। পুলিশ ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য খুমেক হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, কয়রা উপজেলার খিরোল গ্রামের মৃত আবদুল হাকিম সরদারের ছেলে মো. হাবিবুর রহমান (৫৫) পাইকগাছা উপজেলার লস্কর-পাইকগাছা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার হিসেবে প্রায় দেড় বছর চাকরি করছেন। সোমবার (৩০ নভেম্বর) ৬টার দিকে তিনি ছাত্রীর বাড়িতে যান এবং তাকে মাদ্রাসার অ্যাসায়েনমেন্ট আনার জন্য বলেন। মেয়েটি ৮টার দিকে মাদ্রাসায় গেলে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে নিজ শয়নকক্ষে ধর্ষণ করেন।

পরে মেয়েটি কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে এলে মেয়ের নানি এলাকাবাসীর সহায়তায় থানায় এসে অভিযোগ করেন। পরে মাদ্রাসার সুপার হাবিবুর রহমানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ভিকটিমের নানি বাদী হয়ে বুধবার (২ ডিসেম্বর) পাইকগাছা থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে সুপার হাবিবুর রহমান জানান, কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্বে আমাকে ফাঁসানো হয়েছে।

কয়রা থানার ওসি এজাজ শফী জানান, ধর্ষণের অভিযোগে সুপারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য খুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।