বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মানিকগঞ্জে বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৬ সদস্যসহ সাত জন নিহত হয়েছেন। আরেকজন অটোরিকশাচালক। দৌলতপুর উপজেলার মুলকান্দি এলাকায় শুক্রবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-হরেকৃষ্ণ বাদ্যকার (৫৫), তার ছেলে গোবিন্দ বাদ্যকার (২৮), গোবিন্দের স্ত্রী ববিতা বাদ্যকার (২৫), মেয়ে রাধে বাদ্যকার (৪), গোবিন্দের চাচি খুশি বাদ্যকার (৫২), চাচাতো ভাই রামপ্রসাদ বাদ্যকার (৩০) এবং অটোরিকশাচালক জামাল শেখ (৩০)। তাদের বাড়ি টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলা চাষাভাদ্রা গ্রামে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুরে অসুস্থ নাতনির চিকিৎসার জন্য স্বজনদের সঙ্গে নিয়ে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার উদ্দেশে বের হন হরেকৃষ্ণ। তারা দৌলতপুর থেকে সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশা ভাড়া করে মানিকগঞ্জে আসছিলেন। বেলা আড়াইটার দিকে ঘিওর-দৌলতপুর সড়কের দৌলতপুরের মুলকান্দি এলাকায় পৌঁছালে অটোরিকশার সঙ্গে ভিলেজ লাইন পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়েমুচড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই ওই সাতজন নিহত হন।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রেজাউল করিম বলেন, নিহতদের সবাই অটোরিকশার যাত্রী ছিলেন। মরদেহগুলেঅ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়েছে। ঘাতক বাসটি জব্দ করা হলেও চালক ও সহকারী পালিয়েছেন। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এর আগে শুক্রবার সকালে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ট্রাক চাপায় আরও ছয় জনের মৃত্যু হয়। এ দুর্ঘটনায় আহত হয় আরও পাঁচ জন।