বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঠাকুরগাঁওয়ে বিএসএফ’র গুলিতে নাজির উদ্দিন ও রবিউল ইসলাম নামে দুই বাংলাদেশির লাশের ময়নাতদন্ত শেষ হয়েছে। বুধবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত সম্পূর্ণ হয়।

পুলিশ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ভারতে অনুপ্রবেশের দায়ে একজনকে গলায়, অপরজনের পায়ে গুলি করা হয়। এতে তারা আহত হয়। পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে যাওয়ায় পথে দুজনই মারা যান।

পরিবারের অভিযোগ, না বুঝে পেটের তাগিদে অবৈধভাবে তারা ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করেছিলেন। তাদের গুলি না করে আইনের আওতায় নিতে পারত। তা না করে বিএসএফ গুলি করে হত্যা করে। যা কোনভাবেই কাম্য নয়। তারা মারা যাওয়ায় পরিবার পরিজন নিঃস্ব হয়েছে।

ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যেন না ঘটে সে বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি তাদের।

আর জনপ্রতিনিধি বলছেন, বার বার সচেতন করা হলেও কোনোভাবেই রোধ করা যাচ্ছে না সীমান্তে অনুপ্রবেশ।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার ভোরে হরিপুর উপজেলার বেতনা সীমান্তের ৩৬৭ নং পিলার এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করেন নাজির ও রবিউল। ভারতের ফুলবাড়ি সীমান্তের বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি করে। পরে আহত অবস্থায় বাংলাদেশে ফেরত আসেন তারা। পরিবারের সদস্যরা আহতদের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে দুজনই মারা যান।

এ বিষয়ে সদর আবাসিক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. রকিবুল আলম জানান, বিএসএফ খুব কাছ থেকে গলায় একজনকে গুলি করে। অপরজনকে পায়ের উপর গুলি করে।