বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চুয়াডাঙ্গায় অপহরণের আট দিন পর এক কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শুক্রবার (২৫ ডিসেম্বর) রাতে তিনজনকে আটক করা হয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) দুপুরে সদর উপজেলার যাদবপুর গ্রামের পশ্চিমপাড়ার একটি আম বাগান থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

সাকিল আহমেদ (১৫) চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার যাদবপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে। তিনি মাছ ব্যবসায়ী ছিলেন।

দর্শনা থানার ওসি মাহবুবুর রহমান জানান, গত ১৯ ডিসেম্বর রাতে অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা কুষ্টিয়া মিরপুর এলাকার রাজিব সাকিলকে মোবাইল ফোনে ডেকে নেয়। অপহরণকারী চক্রের সদস্যরা যাবদপুর গ্রামের পশ্চিমপাড়ার একটি আম বাগানে নিয়ে খাবারের সাথে ঘুমের বড়ি খাইয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। হত্যার পর মরদেহ বাগানে গর্তে মাটিতে পুঁতে আমের ডাল দিয়ে ঢেকে রেখে পালিয়ে যায়।

নিহতের মা এ ঘটনায় ২০ ডিসেম্বর দর্শনা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পুলিশ ফোনকলের সূত্র ধরে অপহরণ চক্রের মূল হোতা রাজিবসহ তার অন্য দুই সহযোগীকে কুষ্টিয়া ও যশোর থেকে আটক করে। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অপহরণের ৮ দিন পর সাকিলের মরদেহ পুলিশ যাদবপুর গ্রামের আমবাগান থেকে উদ্ধার করে। মরদেহ চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, অপহরণের পরদিন চক্রটি সাকিলের পরিবারের কাছে মুক্তিপণ বাবদ ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন। অন্যদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।