আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়া পৌর সভার নির্বাচনে পোস্টার সাটানোকে কেন্দ্র করে আলীগ বিএনপির হামলা ও পাল্টা হামলা, পৌর বিএনপি’র কার্যালয় ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয়পক্ষে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। পুলিশ ৩জনকে আটক করেছে।। জানাযায়, সাঁথিয়া পৌর সভার নির্বাচনকে সামনে রেখে শুক্রবার সন্ধ্যায় নির্বাচনী এলাকার কলাইচড়া ধানের শীষের পোস্টার সাটাতে যান বিএনপি প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম সিরাজের সমর্থকরা। এসময় নৌকার সমর্থকরা ধানের শীষের পোস্টার সাটাতে বাঁধা দেন ও তাদের উপর চড়াও হন। এতে ধানের শীষের সমর্থক ও প্রার্থীর ছোট ভাই মিরাজ মল্লিকসহ (২৫) ৩জন আহত হয়েছে। তাদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। পরে ধানের শীষের সমর্থকরা পৌর সভার মহিলা মাদরাসার সামনে একত্রিত হয়ে নৌকার সমর্থকদের উপরে হামলা চালায়। এসময় ক্ষেতুপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুনসুর আলম পিন্ধসঢ়;চুর ছেলে সাজিদ হাসান জিকোসহ ৬জন গুরুত্বর আহত হয়। আহতদেরকে সাঁথিয়া হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎিসার জন্য রাতেই পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। আহতরা হলো সাজিদ হাসান জিকো (২৮), ক্ষেতুপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সুমন(২৯), সুজানগর উপজেলার চরগোবিন্দপুর গ্রামের মোজাহারের ছেলে সোহান (২৯) সাব্বির (২৭) ও মিলন (২৬) রবিউল(২০)। এঘটনার প্রতিবাদে রাতে সাঁথিয়া পৌর আ’লীগ একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতেই মেহেদী হাসান বাদী হয়ে সাঁথিয়া থানায় একটি মামলা রুজু করেন। যার নং ০১। মামলায় ৩১জনকে নামীক ও প্রায় ৫০জনকে অজ্ঞাত করে আসামী করা হয়। রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে তিন জনকে আটক করেছে। আটকৃতরা হলো কালাম মল্লিক, শামীম হোসেন ও মিরাজুল ইসলাম। এদিকে সন্ধ্যার পরে দুবৃর্ত্তরা হামলা চালিয়ে পৌর বিএনপির অফিসের আসবাবপত্র ভাংচুর করেছে বলে দাবি করেন ধানের শীষের প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম সিরাজ। তিনি আরও জানান, তার কর্মী সমর্থকরা পোস্টার সাটাতে গেলে তাতে প্রতিপক্ষ বাঁধা সৃষ্টি ও মারপিট করে। এ ঘটনায় সাঁথিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। সাঁথিয়া পৌর সভা নির্বাচনে আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী মাহবুবুল আলম বাচ্চু জানান, ধানের শীষের প্রার্থী তার পরাজয় নিশ্চিত ভেবে নৌকার সমর্থকদের

উপর হামলা চালিয়ে নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করতে চাচ্ছে। ঘটনার পর থেকে পৌর এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় পৌর এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।