শাহীন মাহমুদ: কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নের বহুল বিতর্কিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খরুলিয়া উচ্চবিদ্যালয়টি এখন নানা অনিয়মে জর্জরিত। প্রধান শিক্ষক জহিরুল হকের একঘোয়েমি, স্বেচ্ছাচারিতা, সাম্প্রদায়িক বৈষম্য, সরকারি জমি দখলকে ক্রয় দেখিয়ে অর্থ আত্মসাৎ, নিজ কর্মস্থল সংলঘ্ন আবাসন পরিত্যাগ করে কক্সবাজার শহরে জ্ঞাত আয়ের সাথে সামঞ্জস্যহীন বিলাসী জীবন যাপনসহ বেশ কিছু অভিযোগ উঠে এসেছে। এর ফলে স্কুলটিতে কর্মরত শিক্ষকদের মাঝে অসন্তোষ দানা বেঁধেছে। অন্যদিকে পরিচালনা কমিটিও হয়ে পড়েছে নখদন্তহীন বাঘরূপে। আর এর প্রভাব গিয়ে পড়েছে সরাসরি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে। অভিভাবকদের অভিযোগ- প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারি মনোভাব ও স্কুল পরিচালনা কমিটির নির্লিপ্ততায় স্কুলটি এখন অকার্যকর প্রায়। শিক্ষার পরিবেশ হারিয়ে দুর্নীতির আখাড়ায় পরিণত হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়- ২০১৯ সালের শেষের দিকে স্কুলটির সাথে লাগোয় সড়ক ও জনপথ বিভাগের ৩০৯৭ দাগের (যার আর. এস নাম্বার ১৪৩) একটি জমি বি.এস সূত্রে ক্রয় দেখিয়ে স্কুল ফান্ড থেকে বিপুল টাকা আত্মসাৎ করে। সড়ক ও জনপথ বিভাগের নথি থেকে জানা যায়- জমিটি নিয়ে এল.এ মামলার মাধ্যমে সম্পূর্ণ দাগের জমি অধিগ্রহণকৃত। এবং এবিষয়টি স্কুল কর্তৃপক্ষকেও নোটিশ করা হয়। এরপরও জমিটি কীসের ভিত্তিতে ক্রয় করা হয়েছে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক বি.এস সূত্রে জমিটি ক্রয় করেছেন বলে দাবী করেন। তবে বিরোধীয় জমি জানা থাকা সত্ত্বেও কেনো জমিটি ক্রয় করতে হলো জানতে চাইলে তিনি এর কোনো সদুত্তোর দিতে পারেননি। বিরোধীয় উক্ত জমি ক্রয়বিক্রয়ের সাথে জড়িত সিন্ডিকেট এবং অর্থলুটপাট নিয়ে আগামী পর্ব প্রকাশ করা হবে।

শিক্ষকদের সাথে সাম্প্রদায়িক বৈষম্য: স্কুলটির প্রবীনতম শিক্ষক সঞ্জিত শর্মা দীর্ঘদিন ধরে সফলতার সাথে গণিত বিষয়ে পাঠদান করে আসছেন। সম্প্রতি স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক পদটি শূন্য থাকায় স্কুল পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে প্রবীণ শিক্ষক সঞ্জিত শর্মাকে পদায়ন করার অনুরোধ জানানো হয়। কিন্তু প্রধান শিক্ষক জহিরুল হক স্কুল পরিচালনা কমিটির অনুরোধ আগ্রাহ্য করে তার নিজস্ব চেতনা এবং অনুগত একজনকে ইদগাহ থেকে এনে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে বসানোর ব্যবস্থা করেন। যদিও তার এই কাজকে বৈধতা দিতে তিনি পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে একটি পরীক্ষার আয়োজন করেছিলেন। উক্ত পরীক্ষায় প্রধান শিক্ষক তার মনোনীত প্রার্থীকে আগের রাতেই প্রশ্নফাঁস করে দেন এবং পরীক্ষায় তার পছন্দের একজনকে পরীক্ষক হিসেবে কাজে লাগান বলে অভিযোগ উঠে। এভাবে করে প্রধান শিক্ষকের ইন্ধনে প্রবীণ শিক্ষক সঞ্জিত শর্মাকে হারিয়ে দেওয়া হয় এবং অনুগত শিক্ষককে সহকারি প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত করেন। পরবর্তীতে অভিযোগের বিষয়ে পরিচালনা কমিটি ও অভিভাবকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভ অসন্তোষের সৃষ্টি হলে এক মাসের মাথায় ওই শিক্ষককে সহকারী পদ থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। এরপর থেকে পদটি অদ্যবদি শূন্য রয়েছে। অন্যদিকে পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে সঞ্জিত শর্মাকে পদায়ন করার অনুরোধ অব্যাহত থাকলেও তাকে পদটিতে সাম্প্রদায়িক বিবেচনায় আনতে নারাজ প্রধান শিক্ষক জহিরুল হক। তথ্যটি মৌখিক ভাবে নিশ্চিত করেছেন পরিচালনা কমিটির তৎকালীন একাধিক সদস্য। তবে এসব অভিযোগ ডাহা মিথ্যা বলে দাবী করেন প্রধান শিক্ষক জহির।

আর্থিক অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতা: ১৯৯৩ সালে স্কুলটি প্রতিষ্ঠা লাভ করলেও দীর্ঘদিন ধরে স্কুলটিতে বৈধ এবং কার্যকর কোনো পরিচালনা কমিটি ছিলো না। যদিও কাগজে কলমে কমিটি ছিলো। কিন্তু সেসব কমিটি ছিলো একেবারেই অকার্যকর। সব চলতো প্রধান শিক্ষক জহির এবং স্কুলের অপর শিক্ষক তার ভাই ওবাইদের মাধ্যমে। পূর্বেকার কমিটিগুলোতে এমন অনেক সদস্য ছিলেন- যারা নিজেরাই জানতেন না যে তিনি স্কুল পরিচালনা কমিটিতে রয়েছেন। একটি সূত্রে জানা যায়- ওই কমিটির ১৫ জন সদস্যের মধ্যে ১৩জনই জামায়াতের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। সে সময় প্রধান শিক্ষক ও তার অনুগত পরিচালনা কমিটি কর্তৃক অর্থ আত্মসাতের প্রতিবাদ জানালে একজন অভিভাবককে পিছমোড়া হাত পা বেঁধে স্কুল আঙ্গিনায় মাটিতে ফেলে ব্যাপক মারধর করা হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চতুর্দিকে আলোড়ন সৃষ্টি হলে স্কুল পরিচালনায় কিছুটা পরিবর্তন আসে। ২০১৮ সালের শুরুর দিকে এই আলোচিত ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রথম একটি নির্বাচিত স্কুল পরিচালনা কমিটি পায় প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু যে লাউ সে কদু। প্রধান শিক্ষক জহির এবং তার ভাই ওবাইদ সিন্ডিকেট করে পুরো স্কুল পরিচালনা কমিটিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে গেছে। এমনকি পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে অসংখ্যবার আয় ব্যায়ের হিসাব চাওয়া হলে প্রধান শিক্ষক তাদের কোনো কথায় কর্ণপাত না করে এড়িয়ে যেতেন বলে অভিযোগ কমিটির সদস্যসহ শীর্ষ ব্যাক্তিদের। এমনও গুঞ্জন রয়েছে- স্কুলটির প্রধান শিক্ষক জহির হলেও মূল কলকাটি নাড়েন তার ভাই ওবাইদ।

এভাবে নয় ছয় করে নির্বাচিত কমিটির ২বছর মেয়াদ পূর্ন করা হয়। এর মধ্যে সমকালীন দুর্যোগ করোনাকে পুঁজি করে তড়িঘড়ি করে এডহক কমিটি করে নেওয়া হয়। উক্ত কমিটিতে সদ্য মেয়াদোর্ত্তীণ কমটির সভাপতিকে বাদ দিয়ে আগের মতোই তার অনুগত ব্যাক্তিদের রাখা হয়। জানা যায়- মূলত সদ্য বিদায়ী কমিটির পক্ষ থেকে আর্থিক অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ এনে প্রধান শিক্ষকের কাছে আয় ব্যায়ের হিসাব তথা অডিট রিপোর্ট চাওয়া হলে প্রধান শিক্ষক কৌশল করে এডহক কমিটি নিয়ে আসে। উক্ত এডহক কমিটির একজন হলেন মাওলানা আমিনুল হক। তিনি সড়ক ও জনপথ বিভাগের জমি ক্রয় বিক্রয় কান্ডে দুই পক্ষেরই মধ্যস্থতাকারী (দালাল) হিসেবে ভূমিকা পালন করেছিলেন বলে তথ্য দেন সদ্য বিদায়ী কমিটির একাধিক সদস্য।

অনুসন্ধানে আরও জানা যায়- প্রধান শিক্ষক ও তার ভাই ওবাইদ তাদের জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সামঞ্জস্যহীন বিলাসবহুল জীবন যাপন করেন। একই ধরণের অভিযোগ রয়েছে স্কুলটির আরও দুজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে। স্কুলটির অবস্থান কক্সবাজার শহর থেকে কমপক্ষে ১৫কি.মি দুরে। জানা যায়- স্কুল তথা কর্মস্থলের আশেপাশে উক্ত ৪ শিক্ষকেরই নিজস্ব বসত ভিটে ঘর বাড়ি রয়েছে। এরপরও তারা নিজেদের এলাকায় অবস্থান না করে কক্সবাজার শহরে ভাড়া বাসা নিয়ে থাকেন। কক্সবাজার শহর থেকেই নিয়মিত খরুলিয়া উচ্চবিদ্যালয়ে যাতায়াত করেন। এরফলে অনেক সময় কর্মস্থলে যথা সময়ে উপস্থিত হতে বেগ পেতে হয় তাদের। অভিযোগ রয়েছে- প্রধান শিক্ষকের আস্কারায় তার ভাই অপর শিক্ষক ওবাইদ স্কুলটিতে নিজের মর্জি মতো চলাফেরা করেন। যখন যা মন চায় তাই করেন। অন্যান্য শিক্ষকদের সাথে রূঢ় আচরণ, পারস্পরিক শিষ্টাচার লঙ্ঘনসহ নানা অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার এসব কারণে দিনে দিনে শিক্ষার্থী হারাতে বসেছে স্কুলটি। বছর তিনেক আগেও স্কুলটির শিক্ষার্থী সংখ্যা ছিলো ১৪শ’। আর বর্তমানে শিক্ষার্থী সংখ্যা কমে এসে তা দাঁড়িয়েছে ৯শ’ জনে। যদিও চাকরি বাঁচানোর ভয়ে ভুক্তভোগী শিক্ষকরা ওবাইদের এসব বিষয়ে তেমন একটা মুখ খোলতে চান না। তবে নাম গোপন রাখার শর্তে প্রতিবেদকের কাছে এসব তথ্য জানা স্কুলটিতে বর্তমানে কর্মরত একাধিক শিক্ষক।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটি ও অভিভাবকরা জানান, খরুলিয়া উচ্চবিদ্যালয় প্রতিষ্টার পর থেকে প্রধান শিক্ষিক হিসেবে যোগদান করেন জহিরুল হক। আর এ স্কুলে তার ভাই ওবাইদ যোগদানের পর থেকে সিন্ডিকেট করে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন তিনি। এছাড়া ওবাইদ স্কুলের বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত আসবাবপত্র ক্রয়ের নামেও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। নিজে সময় মতো স্কুলে হাজির না হয়ে উল্টো হুমকি-ধমকি দেন সহকারী শিক্ষক-শিক্ষিকাদের। প্রধান শিক্ষক জহিরুল হক ও ওবাইদ স্কুলে নিয়মিত হাজির না হলেও হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর থাকে তাদের। শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার সময় ফি বাবদ রয়েছে তার অবৈধ আয়ের আরেক উৎস। তার এ অনিয়মের বিষয় সহকারী শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ অভিভাবকরা মুখ খুললে তাদের সঙ্গে চরম দুর্ব্যবহার করা হয়।

তবে জেলা শিক্ষা অফিসের তদন্ত হয় বছর আটেক আগে। আর এই তদন্তে উচ্চ মাধ্যমিক না হয়েও উচ্চ মাধ্যমিকের বেতন তুলায় প্রধান শিক্ষক জহিরুল হককে ততকালীন ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এত অভিযোগ থাকা সত্বেও কিন্তু প্রধান শিক্ষিক জহিরুল হকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ফলে তিনি আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। এ বিষয় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্যরা জানান, প্রধান শিক্ষিক জহিরুল হক নানা অনিয়মের বিষয় একাধিকবার সতর্ক করা হয়েছিলো। তাই ওই প্রধান শিক্ষিক ম্যানেজিং কমিটিকে এড়িয়ে সার্বিক কার্যক্রম নিজের মতো করেই পরিচালনা করছেন।

প্রতিবেদনটিতে উঠে আসা সার্বিক বিষয়ে জানতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) এ.এইচ.এম. ফখরুল হোসাইনের সাথে যোগাযোগ করা হয়। এসময় তিনি প্রতিবেদককে জানান- সংক্ষুব্ধ বা ভুক্তভোগী কেউ লিখিত অভিযোগ করলে তড়িৎ ব্যবস্থা নেওয়া যায়। যেহেতু বিষয়টি আগে থেকে অবগত নন এবং প্রতিবেদকের মাধ্যমে জেনেছেন সেহেতু শীঘ্রই খোঁজ খবর নেওয়া হবে। এবং অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।