আব্দুদ দাইন: পেঁয়াজের ভান্ডার খ্যাত পাবনার সাঁথিয়া উপজেলা। সাঁথিয়ার করমজা ইউনিয়নের আফড়া গ্রামের পূর্ব শত্রুতার জের ধরে কৃষক চেনিলালের মঙ্গলগ্রাম মৌজায় প্রায় ১একর জমির বীজতলার আগাছানাশক বিষ দিয়ে পেঁয়াজের দানা নষ্ট করে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে প্রায় ৩০ বিঘা জমির দানা মরে নষ্ট হয়ে প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়। অভিযোগে জানা যায়, আফড়া গ্রামের চেনিলাল,কাজী লাল,সানোয়ার ও আনোয়ার চার ভাই মিলে মঙ্গলগ্রাম মৌজায় তাদের ৮০ শতক জমিতে জমিতে পেঁয়াজের বীজ তলা তৈরি করেন। সেখানে ভালভাবেই পেঁয়াজের দানা গজেছিল। ওই দানা পেঁয়াজ প্রায় ৩০বিঘা জমিতে লাগানোর ৪/৫ দিন পর পেঁয়াজের চারা মরে যায় । তাদের ধারনা রাতের আধারে দুর্বৃত্তরা পূর্ব শত্রæতার জেরে বীজতলায় আগাছানাশক বিষ প্রয়োগ করে গেছে যা তারা বুঝতে পারে নাই। ওই দানা নিয়ে যখন জমিতে বপন করতে যায় তখন বুঝা যায়নি। দানা বপনের কয়েকদিন পরও যখন দেখা গেল দানা জমিতে লাগে নাই তখন বিষয়টি বুঝতে পারে। সরেজমিন সোমবার আফড়া গ্রামের মাঠে গিয়ে পেঁয়াজের দানা বপন করা জমি থেকে কিছু মরা দানা তুলে দেখা যায় পিয়াজের দানার গোড়ার অংশ পচা ও আগা মরা। আফড়া গ্রামের কৃষক মালু,ইজাই,আবুসহবেশ কয়েকজন জানায় চেনিলালের নিকট থেকে পেঁয়াজের দানা ক্রয় করে জমিতে বপন করেছিল। তাদের সব দানা পঁচে মরে গেছে। তারা বলেন, এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে পেঁয়াজের আবাদ করেছিলাম আমাদের সব শেষ হয়ে গেল। কিভাবে যে এই ঋণ শোধ করবো তা আল্লাহই জানেন। আবার ওই জমিতে যে আবার পেঁয়াজ লাগাবো দানা কেনার টাকাও নেই। এ ঘটনায় চেনিলাল বাদী হয়ে সাঁথিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আসাদুজ্জামান জানান, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বীজতলার মালিক চেনিলাল কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, বড় ¯^প্ন নিয়ে পেঁয়াজের বীজতলা করেছিলাম। দানা সুন্দরও হয়েছিল। ভাল দানা দেখে অনেকেই আমার কাছ থেকে কিনে নিয়েছিল। তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হল আমিও শেষ হয়ে গেলাম । উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার গো¯^ামী বলেন, খবর পেয়ে সুপাভাইজার ওই জমি

থেকে কিছু দানা নিয়ে এসেছে। দানা দেখে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে এতে আগাছানাশক কোন বিষ দেয়া হয়েছে। তবে ল্যাবে নিয়ে পরীক্ষা করলে সঠিক তথ্য জানা যাবে।