ওসমান গনি: কুমিল্লা -৭ ( চান্দিনা) আসনের সাংসদ জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার আলহাজ্ব অধ্যাপক আলী আশ্রাফ এমপির নির্দেশক্রমে কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার ৯ নং মাইজখার ইউনিয়নের মেহার গ্রামে সরকারী খাস খতিয়ান ভূক্ত ১ কিমি ১২ ফুট প্রস্থ নতুন কাচা রাস্তা নির্মাণ ও ১ কিমি পুরাতন কাচা রাস্তা পুনঃসংস্কার করলেন এলাকাবাসী।

ঘটনার বিবরনে জানা গেছে, মেহার গ্রামের নজর মামুদ হাজী বাড়ি রাস্তার মোড় হতে পশ্চিম দিকে কেয়ারের রাস্তা পর্যন্ত রাস্তাটি পুনঃসংস্কারের অভাবে দীর্ঘদিন যাবত মানুষ চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছিল। অথচ এ রাস্তাটি অত্র গ্রামের পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের চলাচলের একটি প্রধান রাস্তা। এই রাস্তাটি উক্ত গ্রামের সকল কৃষকের পশ্চিম মাঠের কৃষি কাজের একটি প্রধান রাস্তা। মাঠের জমিতে ফসল ফলিয়ে এ রাস্তাটি দিয়ে আনা নেওয়া করতে হয়। রাস্তাটি সংস্কার না হওয়াতে এই এলাকার কৃষক সমাজের ভোগান্তির শেষ নেই। অপর রাস্তাটি হলো মাঠের ডিপটিউবয়েল হতে (উঃ) দিকে ১ কিমি নতুম রাস্তা। এটিও সরকারী খাস খতিয়ান ভুক্ত একটি রাস্তার জায়গা। যেটিকে এলাকার লোকজন হাজীর রাস্তা বা জাংগাল বলে জানে ও ডাকে। আজ থেকে ৬০/৭০ বছর আগে হাজী নজর মামুদ নিজের ও মানুষের চলাচলের জন্য নিজস্ব অর্থায়নে রাস্তাটি নির্মান করেছিলেন। সম্ভবত তখন জমিদারী প্রথাছিল। তখন উপজেলার মহিচাইলের জমিদার বাবু ভৈরব চন্দ্র সিংহ এর কাছ থেকে বন্দোবস্ত নিয়ে এ রাস্তা নির্মান করেছিলেন। তখন থেকে এ রাস্তার নামকরণ হয় হাজীর রাস্তা। যা আজও এলাকার মানুষ হাজীর রাস্তা বা হাজীর জাংগাল হিসাবে চিনে ও জানে। পরবর্তীতে রাস্তাটি সরকারের খাস খতিয়ান ভূক্ত হয় রাস্তা হিসাবে। রাস্তাটি খাস খতিয়ান ভূক্ত হলেও সংস্কার ও মেরামত না করায় আস্তে আস্তে রাস্তাটি বিলিন হয়ে যায়। পাশের জমিওয়ালারা দখল করে নেয়। এবছর এসে মাননীয় এমপি মহোদয়ের নির্দেশে নজর মামুদ হাজীর নাতি হাজী রমিজ উদ্দিনের ছেলে (নাতির ঘরের পতি) মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক জসিম উদ্দিন নজর মামুদ হাজীর নামের ১ কিমি রাস্তাটি নতুন করে নির্মান আর অপর রাস্তাটি সংস্কার করার জন্য শ্রমিকদের কে নূন্যতম পারিশ্রমিক বাবত ১ লক্ষ টাকা ব্যক্তিগত ভাবে বরাদ্দ দেন, এতে করে এলাকাবাসী খুশি হয়ে রাস্তা দুটি নির্মান করেন। এদিকে আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সামনে থাকায় সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীরা প্রতিদিন শ্রমিকদের নাস্তা করান। শ্রমিকরা খুশি হয়ে মনের আনন্দে রাস্তার কাজ করেন।