তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে-কৃষকদের গরু চুরির ঘটনায় গনপিটুনীর শিকার সেই ছাত্রলীগ নেতাকে অবশেষে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। গত ৩১ ডিসেম্বর কৃষক নুরনবির মামলায় আদালতে আত্নসমর্পন করতে গেলে বিচারক জেলে পাঠান। এ মামলায় ও আরো চোরাই গরু উদ্ধারে আজ মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারী) ৫ দিনের রিমান্ড চেয়েছেন রায়পুর থানার এসআই জাহাঙ্গির হোসেন।
এছাড়াও শাকিলের বিরুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্থ ৭ কৃষকও অভিযোগ করেছিলেন।

গত শনিবার (৩ অক্টোবর) কৃষকদের চুরি যাওয়া গরু উদ্ধারে রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউপির মীরগন্জ উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তি, বাজার ব্যবসায়ী ও কৃষকদের নিয়ে বৈঠকে হয়। বৈঠকে গরু চোর সেই ছাত্রলীগ নেতা, কোন স্বজন ও তার এলাকার জনপ্রতিনিধি উপস্থিত না হওয়ায় মামলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এসময় বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, কেরোয়া ইউপি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শামছুল ইসলাম সামু, মীরগন্জ উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি সাইদুল বাকিন ভুঁইয়া, ইউপি সদস্য মোঃ সোহেল, মোঃ আজম, মীরগন্জ বাজার কমিটির সভাপতি ওমর পোদ্দার ও ১৭ কৃষকসহ প্রমুখ।

রামগন্জের দুই কৃষক, রায়পুরের দুই কৃষক ও সদর উপজেলার তিন কৃষক যার যার থানায় তাদের গরু চুরির ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা শাকিলের বিরুদ্ধে রোববার মামলা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

গত ১ সেপ্টেম্বর ‘গরু চুরির অভিযোগে গনপিটুনি খেলেন ছাত্রলীগ নেতা’ শিরেনামে যুগান্তর অনলাইনে সংবাদ প্রকাশ হলে টনক নড়ে সবার।

অভিযুক্ত, গরু চোর শাকিল (৩০) লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার উত্তর হামছাদী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং একই ইউপির ছবিলপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে।

উল্লেখ্য- গত বছরের ২৮ আগষ্ট চুরি যাওয়া-রায়পুরসহ আশেপাশের গ্রামের ১৭জন কৃষকের গরু চুরি ও তা বিক্রি করার সময় গনপিটুনি দিয়ে ৩১ আগষ্ট রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউপির মীরগন্জ বাজারের একটি দোকানে এনে আটক করে রাখা হয়েছিলো ছাত্রলীগ নেতা শাকিলকে।

রায়পুরের কেরোয়া ইউপির বড় বাড়ীর ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক সজিব জানান, গত বছরের ২৮ আগষ্ট তার একটি গরু চুরি হলে তা আর খুঁজে পাইনি। গত ৩০ আগষ্ট আমার এক লোকের মাধ্যমে শাকিলকে সদর উপজেলার বশিকপুর ইউপির নাগেরহাট বাজারে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে গরু বিক্রির টাকাসহ আটক করে রায়পুরের কেরোয়া ইউপির মিরগঞ্জ বাজারে নিয়ে আসা হয়।

আরেক কৃষক রায়পুরে গাইনের বাড়ির জাকির জানান, শাকিল গত কয়েকদিন ধরে গোপনে পশু ডাক্তার পরিচয় দিয়ে দিনে আমার গরু চিকিৎসার নামে দেখে আসে। রাতে ঘুম থেকে উঠে দেখি আমার গরু চুরি হয়ে গেছে৷ সে বিভিন্ন মানুষকে ধোকা দিয়ে খামার থেকে গরু চুরি করে নিয়ে যায়। এভাবে ৮ জন কৃষকের গরু চুরি করেছে শাকিল।
এঘটনায় লক্ষ্মীপুর-সদর উপজেলার উত্তর হামছাদী ইউপি চেয়ারম্যান এমরান হোসেন নান্নু ঘটনার সত্যতা স্বীকার-করে বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা স্থানীয়ভাবে সমাধান চাওয়ায় ছাত্রলীগ নেতার গরু চুরির ঘটনাটি বৈঠকের তারিখ দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু ছাত্রলীগ নেতা ও তার পরিবার না আসায় বিচার করা সম্ভব হয়নি।

সদর উপজেলার হামছাদি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ ফয়সাল বলেন, ব্যাক্তির অপরাধ সংগঠন বহন করবে না। এ জঘন্য ঘটনায় শাকিলকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল জানান, পুর্ব কেরোয়া গ্রামের বড় বাড়ির কৃষক মোঃ নুরনবির (৭০) গত বছরের ১০ অক্টোবর ৪০ হাজার টাকা মুল্যের-গরুর বাছুর চুরির মামলা করের সদর উপজেলার হামছাদি ইউপির ছাত্রলীগ নেতা শাকিলের বিরুদ্ধে। ওই সময় কৃষকদের দুই গ্রুপ মীরগঞ্জ বাজারে অবস্থান করায় এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেয়ায় শাকিলকে আটক করেছিলো সদর থানা পুলিশ। কৃষকের মামলায় শাকিল পলাতক থাকায় গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। ৩১ ডিসেম্বর আদালতে আত্নসমর্পন করতে গিয়ে জেলে আছে সে। আরো কৃষকের চুরি যাওয়া গরু উদ্ধারে আজ মঙ্গলবার ৫ দিনের রিমান্ড চেয়েছি।