তাবারক হোসেন আজাদ: ওয়ার্ডবয় ও দালালের দৌরাত্ম‌্যে নাজেহাল লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রোগী ও স্বজনরা। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, ওয়ার্ডবয়দের বখসিস ও নার্সদের দুর্ব‌্যবহারে আখড়া যেন এই হাসপাতাল। আর দালালরা প্রতিনিয়তই এই হাসপাতাল থেকে রোগী বাগিয়ে নিয়ে অন‌্য ক্লিনিকে ভর্তির করানোর প্ররোচনা দেন রোগীর স্বজনদের। চলতি বছরের (২০২১) ৭, ৯ ও ১১ জানুয়ারির দিন সরেজমিনে পরিদর্শনের সময় এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হাসপাতালে দেখা গেছে, জরুরি বিভাগ, স্বাস্থ কর্মকর্তার কক্ষ ও মূল গেটের সামনে দালাল ও ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিরা দাড়িয়ে আছেন । সেখানে মাস্ক ও গ্লাভস পরে দাঁড়িয়ে আছেন কয়েজন যুবক। কেউ কেউ পায়চারী করছেন। তাদের কাজ হাসপাতালে আসা রোগীদের সিএনজি অথবা অ্যাম্বুলেন্স থামার পর কাঁধে করে ভর্তির জন্য নিয়ে যাওয়া। তবে, রোগী এলে স্বজনদের সঙ্গে তারা বেশ কিছুক্ষণ কথা বলেন। এরপর রোগীকে কাঁদে তুলে ওয়ার্ডে রেখে আগের জায়গায় ফিরে যান তারা। তবে

এদিকে, জরুরি বিভাগের ভেতরে দেখা গেছে ৪-৫ জন যুবককে। তাদের হাতেও গ্লাভস। জরুরি বিভাগে রোগী ও স্বজনরা যাওয়া মাত্রই এই যুবকদের তৎপরতা শুরু হয়ে যায়। রোগীর স্বজনদের পেছনে ঘুরতে থাকেন তারা। তারা কী রোগ, কী করবে—তা জানার পরপরই সুযোগ বুঝে স্বজনদের বাগিয়ে নিতে চেষ্টা করেন। স্বজনদের বলেন, ‘ক্লিনিকে ভালো চিকিৎসা হবে। স্যার ভালো করে দেখবেন। এখানে চিকিৎসা হয় না।’

শিশু সন্তানকে চিকিৎসার জন‌্য তাসলিমা নামের একজন নারি জরুরি বিভাগে গিয়ে দেখেন ডাক্তার নেই। এসম দু’জন ব্যক্তি এসে রোগী সম্পর্কে জানার পর তাকে বারবার অন‌্য হাসপাতালে যাওয়ার রোগী নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। আর রোগী অন‌্য হাসপাতালে ভর্তি করাতে ডাক্তারের জন‌্য ৪০০ ও নিজের জন‌্য ৫০ টাকা দাবি করেন। তবে, তাসলিমা এই দালালের কথায় রাজি হননি। এতে ক্ষেপে যান ওই দালাল। তিনি তাসলিমাকে আর জরুরি বিভাগের রিসিপশনেও যেতে দেননি।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, রোগী ভর্তি করার পর পরীক্ষা ও অপারেশনের জন‌্য ড্রেসিং করতে প্রতিবার সিজার অপারেশান করালেই ওয়ার্ডবয়কে দিতে হয় টাকা। এক্ষেত্রে সিজার অপরেশন করালেই ২’শ থেকে ৫’শ দিতে হয়।

এই হাসপাতালের ১০০ মিটারের সামনেই রয়েছে ৪টি প্রাইভেট হাসপাতাল। তার ২০০ মিটার দুরেই রয়েছে আরো তিনটি হাসপাতাল। জরুরি বিভাগের সামনে সার্বক্ষণিক সিসি ক্যামেরা না থাকা ও অভিযোগ পেলেও দালালের তৎপরতা বন্ধের বিষয়ে কর্তৃপক্ষ উদাসীন। অভিযোগ রয়েছে, দালালদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলেও বা হাসপাতাল থেকে অন‌্য ক্লিনিকে নিয়ে গেলেও তারা নির্বিকার থাকছেন। ‘ডাক্তারদের ম্যানেজ’ করেই দালালরা হাসপাতালে নিজেদের তৎপরতা চালান বলেও অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা চরবংশী ইউপির খাসেরহাট গ্রামের সোলায়মান বলেন, মারামারির ঘটনায় ‘মাথায় আঘাত পেয়েছেন। কেবিনে ভর্তি আছি। ডাক্তার ঠিকমতো আসেন না। হাসপাতালের প্রায় সব বিভাগের সবার আচরণই খারাপ। কাউকে কোনো কিছু জিজ্ঞাসা করে ঠিকমতো উত্তর পাওয়া যায় না। নার্সদের ব্যবহার আরও খারাপ। স্যালাইন বা ব্যাগের রক্ত শেষ হয়ে গেলে খুলে দিতে বা রোগীর প্রয়োজনে তাদের ডেকেও পাওয়া যায় না। আবার বার বার ডাকতে গেলে তারা দুর্ব্যবহার করেন।’

নার্সদের সম্পর্কে একই কথা জানিয়েছেন চরপাতা ইউপির বোর্ডারবাজার এলাকার রোগীর স্বজন । তিনি বলেন, ‘গত ৬ দিন আগে আমার স্ত্রীর সন্তান জন্মদানে সিজার অপারেশনের জন্য তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। এক নার্সের সঙ্গে বহুবার বাকবিতণ্ডা হয়েছে। ’ সেজন্য তাকে একসঙ্গে না লিখে হাসপাতাল গেইটের সামনের এক ফার্মেসি থেকে ৬ বার ওষুধ আনিয়ে হয়রানির স্বীকারও হতে হয়েছে।

পশ্চিম আলোনিয়া গ্রাম থেকে-আসা রোগীর স্বজন আলম বলেন, ‘আমার বাবাকে গত ৬ দিন আগে হাসপাতালে ভর্তি করি। ওয়ার্ডবয়দের প্রতিবার স্ট্রেচারের জন্য ওয়ার্ডবয়রা টাকা দাবি করেন। তারা টাকা ছাড়া স্ট্রেচারে হাত দেন না। আমার বাবাকে ড্রেসিং করানোর জন‌্য স্ট্রেচারের প্রয়োজন। এতে ওয়ার্ডবয় ২০০ টাকা দাবি করেন।’

কেরোয়া ইউপির সামছুল আলম বলেন, ‘আমার ভাই সড়ক দুর্ঘটনার শিকার। তাকে হাসপাতালে নিয়ে এসে অপারেশন করাতে হয়। প্রায় ১৫ দিন ভাইয়ের সঙ্গে হাসপাতালে আছি। ওয়ার্ডবয় ও নার্সদের জন‌্য পৃথক পৃথক টাকা দিয়েছি। ’

এছাড়া, হায়দরগঞ্জ থেকে আসা রোগীর স্বজন ও সোনাপুর গ্রাম থেকে আসা রোগীর জন্য ওয়ার্ডবয়দের সম্পর্কে একই তথ্য দিয়েছেন।

দালালের দৌরাত্ম‌্য বিষয়ে ইউএনও সাবরীন চৌধুরী সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।।

রোগীর স্বজনের সঙ্গে নার্সের দুর্ব্যবহারের অভিযোগ স্বীকার করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার জাকির হোসেন। ‘বিভিন্ন পরিস্থিতিতে এমন ঘটনা ঘটে। উপজেলা আইনশৃংখলা সভায়ও দালালদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। ইতোপূর্বে নার্সদের নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে, যেন তারা রোগী ও স্বজনদের সঙ্গে ‍দুর্ব‌্যবহার না করেন। হাসপাতালের ভিতরে ওষুধ কোম্পানির লোকদের নিষেধ করা হয়েছে।-কিন্তু সেটি হচ্ছে না। শুধু সরকারি হাসপাতাল নয়। বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকেও একই অবস্থা। এটা দুঃখজনক। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।