জয়নাল আবেদীন: হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রংপুর-ঢাকা ছয় লেন মহাসড়ক নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলেছে। গাইবান্ধার পলাশবাড়ি থেকে রংপুরের বড়দরগা পর্যন্ত ২৭ দশমিক ২ কিলোমিটার সড়কের ৭ নং প্যাকেজের আওতায় ছয় লেনের নির্মাণ কাজের প্রায় ২৫ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। বিভিন্ন কারণে প্রকল্প ব্যয় আরো বাড়বে বলে জানিয়েছেন সড়ক বিভাগের কর্মকর্তারা। অপরদিকে ভূমি জটিলতাসহ রংপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের অসযোগীতার কারণে বড়দরগা থেকে রংপুর নগরীর মর্ডান মোড় পর্যন্ত ২৩ দশমিক ৫ কিলোমিটার সড়ক প্যাকেজ-৮ এর নির্মান কাজ কিছুটা দেরি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তাদের অভিযোগ রংপুর জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখার কর্মকর্তারা গত এক বছরে তাদের মাত্র ১৫কিলোমিটার অথিগ্রহন জায়গা বুঝিয়ে দিয়েছেন। এতে করে নিদৃষ্ট সময়ে তাদের কাজ শেষ করতে বেগ পেতে হবে। এক হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের ছয় লেনের কাজের প্যাকেজ-৭ এর ২৫ শতাংশ শেষ হয়েছে। অপদিকে প্যাকেজ -৮ আওতায় মাত্র দুটি ব্রীজের পাইলিং, ৩টি কালভার্ট ও কিছু মাটি ভরার্টের কাজ শেষ হয়েছে। ২০২২ সালে রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক ছয় লেনের নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প কর্মকর্তারা। সড়ক নির্মাণ প্রকল্প প্যাকেজ-৭ এর প্রধান প্রকৌশলী ম আফিদ হোসেন জানান, ৫২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি থেকে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার বড়দরগা পর্যন্ত ২৭ দশমিক ২ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ১৮কিলোমিটার সড়কের নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে। এর জন্য ২৪০ একর জমি হুকুম দখল করা হয়েছে। জমির মালিকদের রংপুর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে শত কোটি টাকা ক্ষতি পুরণ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া অবৈধ দখলদারদেরও ৩ কোটি দেওয়া হয়েছে। এই প্যাকেজের আওতায় ৩০টি কালভার্টের মধ্যে ১৮টির নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। চলমান আছে ৬টির কাজ যা অল্প সময়ের মধ্যে শেষ হবে। তিনি জানান, মাহাসড়কের এই অংশের পলাশবাড়িতে এক ফ্লাই ওভার নির্মাণ করা হবে যার পরিধি হবে ১৭৬ মিটার। এছাড়াও পীরগঞ্জের ধাপের হাটে, লালদিঘিতে ওভার পাস নির্মাণ করা হবে। প্রকৌশলী হোসেন জানান, ছয় লেন এই সড়কের মধ্যে চার লেনে দ্রুত গতীর যাবাহন চলাচল করবে। বাকি দুই লেনে চলাচল করবে সল্প গতীর বিভিন্ন ধরনের যানবাহন। তিনি বলেন, ৫শ২৫ কেটি টাকার এই সড়ক নির্মাণ প্রকল্পে জমির মালিকদের ক্ষতি পুরণ, নতুন অফিস ভবন নির্মাণ, মাটিভরাটসহ বিভিন্ন কাজ রয়েছে। ইতি হধ্যে অফিস ভবন নির্মানের কাজ প্রায় শেষের দিকে বলে জানান তিনি।

২০১৯ সালের জুস মাসে সরকার রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক ছয় লেন নির্মানের আদেশ দিলেও নানা জটিলতার কারণে চলতি বছরের জানুয়ারী মাস থেকে এর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের প্যাকেজ-৮ এর প্রধান প্রকৌশলী এইচ এম জাবেদ হোসেন জানান, পীরগঞ্জের বড়দরগা থেকে রংপুর নগরীর মর্ডান মোড় পর্যন্ত ২৩ দশমিক ৫ কিলোমিটার সড়কের জন্য ৪শ৮০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এই নির্মাণ কাজের আওতায় ১৭টি কালভার্ট, ৪টি ব্রীজ রয়েছে। এর মধ্যে ৩টি কালভার্টের কাজ শেষ হয়েছে। দুইটি ব্রীজের পাইলিং শেষ হয়েছে। তিনি জানান, ২০১৯ সালের জুস মাসে সরকার রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক ছয় লেন নির্মানের আদেশ দিলেও রংপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কর্মকর্তারা ২৪ জুন ৭ কিলো মিটার ও ২০ সেপ্টেম্বর ৩ কলোমিটার ভূমি হুকুম দখলকৃত জায়গা তাদের বুঝিয়ে দিয়েছে। মুলত সেখানকার কর্মকর্তাদের অসযোগীতার কারণে কাজটি পিছিয়ে যাচ্ছে। রংপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অতিরিক্ত ভূমি হুকুম দখল কর্মকর্তা জানান, জমি হুকুদ দখল করতে সময় লাগে সেজন্য দেরি হচ্ছে বলে জানান তিনি।