সাহারুল হক সাচ্চু: এখন ঘড়ি মেকারদের কাজে আর তেমন ব্যস্ততা থাকে না। সময় কাটে ঘড়ি সারাতে আসবে তাদের অপেক্ষায়। এমন অপেক্ষার মাঝে দিনে হয়তো কেউ আসে। আবার ভরদিনে একজনও আসে না। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ঘড়ি মেকারদের দিনলিপিতে এমন চিএ জানা গেছে। উল্লাপাড়া উপজেলা সদরে এখন হাতে গোনা জনা তিনেক ঘড়ি মেকার আছেন। পৌর শহরের পুরাতন বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় ঘড়ি মেকার প্রায় ৫৯ বছর বয়সী রাধা পদ মোহন্ত। তিনি টানা ৩৭ বছর ধরে এ পেশায় আছেন। এখন স্থানীয় একটি মার্কেটের গলিপথে এক কোনায় দোকান নিয়ে নিয়মিত বসেন। প্রতিবেদককে জানান, এ পেশার আয়ে সংসার চলে। আগের দিনে কাজের চাপে কেউ একটি ঘড়ি সারাতে দিলে তিন থেকে পাঁচ দিন সময় নেওয়া হতো। আর এখন অপেক্ষায় থাকেন কেউ হয়তো ঘড়ি সারাতে আসবেন। এখন আসেন তবে কেউ ঘড়ি সারাতে নয় হয়তো ঘড়ির পুরানো ব্যাটারি কিংবা ফিতা বদলাতে আসেন। তিনি আরো জানান, এখনকার প্রায় সব ঘড়িই ডিজিটাল । এ পেশা বদল বিষয়ে জানান তার বর্তমান বয়সে পেশা বদলে কি কাজ করবেন।

Previous articleরূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ ৩৫ ভাগ সম্পন্ন
Next articleরায়পুরে ডাকাতিয়া নদীর উপর ব্রীজ পারাপারে গ্রামবাসীদের দুর্ভোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।