বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় পূর্বশত্রুতার জেরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ফয়েজ মিয়া (৬০) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরো অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।

শনিবার (১৩ মার্চ) সকালে কসবা উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নে নিমবাড়ী গ্রামে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে গুরুতর আহত ফয়েজ মিয়া (৪০) ও রিমন মিয়া নামে দুইজনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরবর্তী সংঘর্ষের আশঙ্কায় এলাকায় বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত ২০১৭ সালে পূর্বশত্রুতার জের ধরে নিমবাড়ী গ্রামে পান্ডুগোষ্ঠী এবং কাবিলা গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে ওই সময় পান্ডু গোষ্ঠীর রহিস মিয়া নামে এক ব্যক্তি নিহত হন। এ ঘটনার পর প্রতিপক্ষ কাবিলা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়। এই মামলায় প্রধান সাক্ষী ছিলেন পান্ডু গোষ্ঠীর ফয়েজ মিয়া। রহিস হত্যা মামলার আসামীরা দীর্ঘদিন জেলে থাকার পর সম্প্রতি আদালত থেকে জামিন পেয়ে এলাকায় আসেন। পরে পূর্বের হত্যা মামলাটি প্রত্যাহারের জন্যে পান্ডু গোষ্ঠীর লোকজন ওপর চাপ সৃষ্টি করে আসছিলেন আসামি পক্ষের কাবিলা গোষ্ঠীর লোকজন। এতে রাজি না হওয়ায় শনিবার সকালে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে কাবিলা গোষ্ঠীর লোকজন পান্ডু গোষ্ঠীর ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় টেঁটার আঘাতে ঘটনাস্থলে পান্ডু গোষ্ঠীর ফয়েজ মিয়া নিহত হন। তিনি পূর্বের রহিস মিয়া হত্যাকাণ্ডের প্রধান সাক্ষী ছিলেন। এ ঘটনার পর নিহত ফয়েজ মিয়ার স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। তারা এই হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

নিহতের ছেলে ইকরাম মিয়া বলেন, গত ২০১৭ সালে তারা আমার চাচাকে হত্যা করা হয়। এরপরে হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে তারা গত ৪ বছর ধরে আমাদের পরিবারের ওপর নানাভাবে হামলা নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছিল। আমার চাচার হত্যা মামলার সাক্ষী ছিলেন আমার বাবা। মামলা কার্যক্রম শেষের পথে ছিল। শুধু রায়ের অপেক্ষায় ছিলাম আমরা। আমরা আমাদের চাচার হত্যা মামলাটি মীমাংসা না করার কারণেই আজকে তারা আমার বাবাকে হত্যা করছে। আমি হত্যাকারীদের দ্রুত বিচার দাবি করছি।

নিহতের স্ত্রী রেখা আক্তার বলেন,আমার স্বামীকে যারা হত্যা করেছে আমি তাদের বিচার চাই। তাদের দ্রুত ফাঁসি চাই। আমরা এর আগের হত্যাকাণ্ডের বিচার পাইনি। এখন তারা আজ আমার স্বামীকে রাস্তায় ফেলে হত্যা করেছে। তাদের যেন ফাঁসি হয় আমি সেই দাবি করছি।

নিহত ফয়েজ মিয়ার কন্যা ইভা আক্তার বলেন, আজকে সকালে আমার বাবা বাজারে গিয়েছিলেন। আমি মসজিদ থেকে বাড়ি ফিরে শুনতে পারি আমার বাবা মারা গেছেন। গত ৪ বছর আগে আমার চাচাকে তারা হত্যা করেছিল। সে ঘটনার বিচার আজও পাইনি। কিন্তু আজকে আমার বাবাকে তারাই হত্যা করল। কার কাছে বিচার চাইব। আমি আমার বাবা হত্যাকাণ্ডের দ্রুত বিচার দাবি করছি।

ঘটনায় আহত অপর ব্যক্তি ফায়েজ মিয়া বলেন, আমরা বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে হঠাৎ করে আমাদের ওপর হামলা করে তারা। আমাকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে রাস্তার কিনারে ফেলে দেয় এবং তারা ফয়েজ ভাইকে ঘটনাস্থলেই মেরে ফেলে। আগের হত্যা মামলার আপস না করার কারণে ওই মামলার আসামিরাই এই হামলা করেছে। আমি তাদের বিচার দাবি করছি।

এদিকে আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় ফয়েজ মিয়া ও রিমন নামে দুজনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে ফয়েজ মিয়ার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

এ ব্যাপারে ডা. আরিফুজ্জামান বলেন, আমাদের এখানে বেশ কয়েকজন চিকিৎসা নিয়েছেন। এর মধ্যে প্রথমে আসা ফয়েজ মিয়া নামের রোগীর শরীরে টেটার আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আহত সবাইকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। ফয়েজ মিয়া ও রিমন নামে দুজনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালের সার্জারি বিশেষজ্ঞরা তাদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিচ্ছেন।

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে কসবা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। কসবা সার্কেলর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার নাহিদ হাসান বলেন, কসবা নিমবাড়ীতে দুপক্ষের সংঘর্ষে ফয়েজ মিয়া নামে একজন প্রথমে গুরুত্বর আহত হয়ে পড়ে হাসপাতালে গিয়ে মারা যায়।

তিনি জানান, গত ২০১৭ সালের একটি হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করেই এই সংঘর্ষ হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। পরবর্তী সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ঘটনার পর নিহতের লাশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে এখনো থানায় এ ব্যাপারে মামলা হয়নি।
এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

Previous articleমশা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার দায় কাউন্সিলরদের ঘাড়ে চাপালেন উত্তরের মেয়র
Next articleকরোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু কমেছে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।