তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার উত্তর গাইয়ারচর গ্রামে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করায় ৫০টি পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন। আব্দুল হাসেম ও খোকন মাল নামের তাদের দুই প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে রাস্তাটি বন্ধের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাস্তাটি বন্ধ করায় পরিবারগুলো ৭দিন ধরে চলাচলে বিড়ম্বনায় পড়ে।

শনিবার (২০ মার্চ) দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, চলাচলের জন্য ৩টি মাটির রাস্তা। নতুন কয়েকটি কলা গাছের চারা রোপন করে চলাচলের প্রধান রাস্তাটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তার পাশে অনেকদুর দিয়ে রাস্তা পার হয়ে সড়কে উঠতে হয়। সকলের চলাচলের প্রধান রাস্তাটি বন্ধ হয়ে গেছে।

ভুক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, পুরো রাস্তাটির দৈর্ঘ্য ছিল ৯০ ফুট ও প্রস্থ ৫ ফুট। ১৮ বছর ধরে ওই সব পরিবার রাস্তাটি দিয়ে চলাচল ও তাদের সন্তানরা মাদরাসায় আসাযাওয়া করতো। হঠাৎ গত ১৪ মার্চ প্রতিবেশী সাবেক ইউপি সদস্য খোকন মাল রাস্তাটির কিছু অংশ কেটে দিয়ে কয়েকটি কলাগাছ রোপন করেছেন। পরিবারগুলোর পক্ষে স্থানীয় নারী ইউপি সদস্য ফিরোজা বেগম ও তার স্বামী ফিরোজ আলম জানা উদ্যোগ নিলে বাঁধাদানকারিরা উশৃংখল প্রকৃতির লোক ও তাদের দ্বারা মারামারির আশংকা হওয়ায় বলতে পারছেন না। পাশেই বিকল্প দুটি রাস্তা পার হতে দীর্ঘ সময় লাগায় ৫০টি পরিবারের সদস্যরা বেকায়দায় পড়েছেন।

অবরুদ্ধ পরিবারের বৃদ্ধ লেদু মিয়া (৭০), হাজি ফজল হক বেপারি (৯৫), সোলায়মান বেপারি(৫৫) ও সেলিনা বেগম (৪৫) বলেন, ‘৫০টি পরিবারের সদস্যরা গ্রামের দিনমজুর, কৃষক ও কয়েকজন শহরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। সে কারণে সবাই এখানে জমি বাড়ী-ঘর নির্মান করে বসবাস করছেন। সবাই শান্তিপ্রিয় মানুষ। যে ব্যক্তি রাস্তাটি বন্ধ করেছেন, তিনি একজন স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি ও সাবেক ইউপি সদস্য। প্রায় ১৮ বছর ধরে ওই রাস্তাটি দিয়ে পরিবারগুলো চলাচল করছে। তাদের সন্তানরা একটিমাত্র প্রতিষ্ঠানে (মাদরাসা) চলাচল করে থাকে। হঠাৎ করে ইউপি সদস্য ও তার পাশেই বসবাস করা আব্দুল হাসেম নামের ব্যাক্তি তাঁদের জমি দাবি করে রাস্তাটি দখল করে নেন। রাস্তাটি কেটে দিয়ে তার মধ্যে কলাগাছ রোপন করেছেন । ৭দিন ধরে চলাচলে আমরা বেকায়দার মধ্যে রয়েছি। এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট অভিযোগ দিয়েও কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না।’

সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ খোকন মাল বলেন, ‘পুরো এলাকার বেশির ভাগ জমি আমাদের ছিল। ওই সব পরিবার যেসব জমি কিনেছে, সেগুলোও আমাদের বাপ-চাচার ছিল। রাস্তার পুরো জমিটি আমার। তাঁরা দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করেছেন। আমার প্রয়োজন হওয়ায় এখন জমিতে রাস্তা দিবো না। এখানে দখলের প্রশ্ন আসবে কেন?

এবিষয়ে চরআবাবিল ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নাসির উদ্দিন বলেন, দুই পক্ষের মধ্যেই ঝামেলা। দুই পক্ষকে নিয়ে মিমাংসা করার চেষ্টা করবো।।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, ‘ বিষয়টি আমার জানা নাই। ভুক্তভুগি পরিবার অভিযোগ দিলে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

Previous articleউচ্চ আদালতের রায় অমান্য করে যমুনায় আবাদি জমি খনন, প্রতিবাদে মানববন্ধন
Next articleপীরগাছায় ঘুষ ছাড়া মিলছে না ভূমি রেকর্ড ও জরিপ সংক্রান্ত সেবা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।